হাইস্পিড ব্রডব্যান্ড কানেকটিভিটির আওতায় আসবে ২ লক্ষ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: পলক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন আগামী ৩ থেকে ৫ বছরের মধ্যে দেশের ২ লক্ষ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হাইস্পিড ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট কানেকটিভিটির আওতায় আসবে। প্রতিমন্ত্রী আজ সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশ এর উদ্যোগে “টেল মাই লিডার: গ্লোবাল চাইল্ড লিড ডিজিটাল হ্যাংআউট” শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারে যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন বর্তমানে গ্রাম পর্যন্ত ফাইবার অপটিক্যাল ক্যাবল কানেক্টিভিটি পৌঁছে গেছে। তিনি বলেন কোভিড ১৯ সময়ে শিক্ষাকার্যক্রম অব্যাহত রাখতে ৭০ শতাংশ শিক্ষার্থীই অনলাইনে শিক্ষা নিচ্ছে। বাকি ৩০ শতাংশকেও দূরশিক্ষণের আওতায় আনতে ৩৬০ ডিগ্রি অ্যাপ্রোচে কাজ করছে সরকার। এজন্য জাতীয় সংসদ টেলিভিশন চ্যানেল এবং রেডিও এর পাশাপাশি ইন্টারনেট বা স্মার্টফোন না থকালেও তাদের জন্য ৩৩৩ টোল ফ্রি নম্বরে কল করে শিক্ষকের পরামর্শ নেয়ার মতো উদ্ভাবনী সেবা চালু করা হয়েছে।
তিনি বলেন শিক্ষার্থীদের আইটি বিষয়ে দক্ষ করতে সরকার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ‘ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাবস’ স্থাপন করছে।

তিনি আরো বলেন, ১৬ কোটি মানুষের এই দেশে এখন ১১ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। শতভাগ মোবাইল পেনিট্রেশন অর্জন সম্ভব হয়েছে। তাই সুবিধাবঞ্চিত কিংবা অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে নিতে খুব একটা বেগ পেতে হবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন

প্রতিমন্ত্রী জানান, কোভিড হানার শুরুতেই আইসিটি বিভাগ মহামারিতেও কীভাবে জীবনকে সচল রাখা যায় সে জন্য সকলের অংশগ্রহণ মূলক পরিকল্পনা গ্রহণ করে। গৃহীত ৫টি উদ্যোগের মধ্যে সবার ওপরে ছিলো শিক্ষা।

প্রতিভা তুলাধরের সঞ্চালনায় হ্যাংআউটে আরো বক্তব্য দেন উগান্ডার ফার্স্ট লেডি এবং শিক্ষা ও ক্রীড়া মন্ত্রী জ্যানেট কাতাহা মুসেভেনি, দক্ষিণ সুদানের জাতীয় সাধারণ শিক্ষা ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী মার্টিন টাকো মই, কম্বোডিয়ার শিক্ষা, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি জেনারেল চৌন রামি এবং নেপালের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব গোপী নাথ মৈনালি।

ছয় দেশের শিশুদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত এই হ্যাংআউটে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন ঐক্য ও রাফসান।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: