‘ক্ষমতায় গেলে ডা. মিলন-নূর হোসেন হত্যার বিচার করবে জাপা’


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ক্ষমতাচ্যুত করতেই ডা. মিলন ও নূর হোসেনকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘গত ৩০ বছরেও ডা. মিলন ও নূর হোসেন হত্যার বিচার হয়নি। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে অবশ্যই এই ষড়যন্ত্রমূলক হত্যার বিচার করবে।’

রোববার (৬ ডিসেম্বর) বনানী জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে দলের ‘সংবিধান সংরক্ষণ দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত এক সভায় ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘কেউই ক্ষমতা ছাড়তে চায় না, কিন্তু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ রক্তপাত চাননি বলেই গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষা করে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছেন।’

জাতীয় পার্টি মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, ‘১৯৯১ সালে তিন জোটের রূপরেখায় মানবতাবিরোধী ও যুদ্ধাপরাধীদের লালন করা হয়েছে। ১৯৯১ সালের নির্বাচনেই নিজামী ও মুজাহিদকে এমপি বানানো হয়েছিলো। অথচ বর্তমানে দেশে ভোটাধিকার নেই, মানুষের কথা বলা অধিকার নেই। নির্বাচনের ওপর আস্থা নেই দেশের মানুষের। তছনছ হয়েছে দেশের নির্বাচনি ব্যবস্থা। আমরা স্বাধীন নির্বাচন কমিশন চাই। মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিতেই জাতীয় পার্টির রাজনীতি। বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুঃশাসন থেকে দেশের মানুষকে মুক্তি দিতেই আমাদের রাজনীতি।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকার খুন, গুম, হত্যা ও ধর্ষণ বন্ধ করতে পারছে না। অথচ মাত্র ১ মাসের মধ্যে আইনের শাসন কার্যকর করে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দেশ থেকে এসিড সন্ত্রাস নির্মূল করেছিলেন।’

এসময় দলের কো-চেয়ারম্যান এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘দেশের মানুষকে স্বাধীনতার প্রকৃত স্বাদ দিয়েছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তাই প্রতিহিংসার বশে এরশাদকে আর স্বৈরাচার বলা চলবে না।’

সারাবাংলা/এএইচএইচ/এমও





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: