শীতে পায়ের বাড়তি যত্ন নিন


ডিএমপি নিউজ: এই শীতে পায়ের ত্বক সুন্দর রাখতে চাই একটু বাড়তি যত্ন। এ সময় বাইরে অনেক ধুলাবালি থাকে তাই বাইরে থেকে ফেরার পর কুসুম গরম পানিতে লেবুর রস ও এক চিমটি লবণ মিশিয়ে ১০ মিনিট পা ডুবিয়ে রাখুন। এরপর হালকা ভেজা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার মাখুন।

আসুন জেনে নেই ঘরোয়া উপায়ে পায়ের যত্ন নেওয়ার কিছু উপায় জেনে নেই-

স্ক্রাবিং: মিনিট দশেক খুব হালকা গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন। এরপর খুব ভালোভাবে পা মুছে নিয়ে এই স্ক্রাব ব্যবহার করুন। মোটা দানার চিনি, লেবুর রস, খাঁটি নারিকেল তেল পরিমাণ মতো মিশিয়ে দুই পায়ে লাগিয়ে নিন। চিনি যতক্ষণ না গলে যাচ্ছে ততক্ষণ হালকা হাতে ঘষতে থাকুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন।

প্যাক: বেসনের সঙ্গে মধু, হলুদ বাটা, অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে পায়ে ও গোড়ালিতে লাগাবেন। ২০ মিনিট পর হালকা হাতে ঘষে তুলে ফেলুন।

বেসনের সাথে অল্প দুধ বা দই, হলুদ এক সাথে পেষ্ট তৈরি করে পায়ে লাগিয়ে রাখুন। তারপর ভেজা হাতে আস্তে আস্তে মিশ্রণটি পায়ে ঘষুন। আলাদা করে সাবান ব্যবহার করার দরকার নেই। বেসনের এই মিশ্রণ ভালো ক্লিনজারের কাজ করে। পায়ে রুক্ষভাব কমানোর জন্য অল্প গোলাপজলের মধ্যে এক চামচ গ্লিসারিন দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ফাটা গোড়ালি নিরাময়ে প্যাক: নারিকেল তেল ও পেঁপের মিশ্রণ ফাটা গোড়ালিতে লাগিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট। এরপর ধুয়ে ফেলুন।

অয়েল ম্যাসাজ: গোসলের সময় তেল ও পানি ব্যবহার করে ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখা সম্ভব। গোসলের আগে পায়ে তেল মাখুন। ত্বক নরম থাকবে। তিলের তেল বা যে কোনো ভেজিটেবল অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। শীতের সময় সরষের তেল ত্বকের পক্ষে ভালো। সারা বছর পায়ের যত্নে তিলের তেল বেশ উপকারী। ম্যাসাজের আগে অল্প তেল গরম করে ব্যবহার করুন।

ময়েশ্চারাইজিং: গোসলের পর ভেজা পায়ে বডি লোশন বা ক্রিম লাগান, ত্বকের ময়েশ্চার বজায় থাকবে। ভিটামিন ই-সমৃদ্ধ লোশনও মাখতে পারেন। আমন্ড তেল ও অলিভ তেল মিশিয়ে পায়ের পাতায় মাখুন। ভালো ক্রিম দিয়ে ম্যাসাজ করুন। গোঁড়ালিতে ক্রিম লাগান। তুলা বা পরিষ্কার কাপড় গোঁড়ালিতে ব্যান্ডেজ করুন।

পেডিকিওর: প্রতি সপ্তাহে অন্তত একদিন ঘরে বসেই পেডিকিওর করুন। রাতে শোওয়ার আগে উষ্ণ গরম পানিতে শ্যাম্পু ও লবণ মিশিয়ে ২০ মিনিট পা ডুবিয়ে রাখুন। রোদে পোড়া পায়ের কালো দাগ দূর করতে পেডিকিওরের পর কচি শসার রস মাখুন। পায়ের ছোপ ছোপ দাগ দূর করতে মুলার রস মালিস করতে পারেন। তার আগে পা গরম পানিতে কিছুক্ষণ ঘষতে পারেন।

টিপস

১. পায়ের চামড়া টেনে তুলবেন না।

২. পায়ের পাতার ত্বক যাতে শুষ্ক না থাকে, সেদিকে খেয়াল রাখুন ।

৩. ময়েশ্চারাইজার লাগানোর আগে ত্বকের মরা কোষ পরিষ্কার করে নিন।

৪. খুব ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় পা সুতির পরিষ্কার মোজা দিয়ে ঢেকে রাখুন।

৫. নিয়মিত অলিভঅয়েল ম্যাসাজ ত্বক ও নখ দুই-ই ভালো রাখে।

৬. সপ্তাহে ২ বার খুব হালকা কুসুম গরম পানিতে চার টেবিল চামচ পুদিনার রস মিশিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন।

এতে রক্ত সঞ্চালন ভালো হবে তার সঙ্গে ফাটা গোড়ালির সমস্যাও দূর হবে।

৭. পেট্রোলিয়াম জেলির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে পা ফাটার ওপর লাগান। পায়ের জন্য আরামদায়ক জুতা পরুন।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: