নতুন চুল গজানোর ৬ উপায়


ডিএমপি নিউজ: চুলের নানা রকম সমস্যার মধ্যে চুল পড়ে যাওয়া অন্যতম। নারী বা পুরুষ সবাই এ সমস্যায় ভুগে থাকেন। শীতকালে চুল পড়ার সমস্যা সাধারণত বেড়ে যায়। তবে কয়েকটি নিয়ম মানলেই চুল পড়া বন্ধ হয়ে নতুন চুল গজাবে। কোন কোন উপায়ে নতুন চুল গজায় চলুন জেনে নেয়া যাক-

নারকেল তেল: চুলের জন্য নারকেল তেল সবচেয়ে কার্যকরী। এ তেল ব্যবহারে চুল ভেতর থেকে পুষ্টি পায়। নারকেল তেলে প্রচুর ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। এজন্য দ্রুত চুল লম্বা হয়, সেইসঙ্গে নতুন চুল গজায়। এ ছাড়াও চুল হয় ঝলমলে ও কোমল।

হেয়ার ম্যাসাজ: ম্যাসাজ করলে নতুন চুল গজাবে খুব শিগগিরই। এজন্য তেল বা হেয়ার মাস্ক মাথার স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করতে পারেন। এতে মাথার স্ক্যাল্পে রক্ত সঞ্চালন বাড়বে ও নতুন চুল গজাবে। নিয়মিত চুল চিরুনি করতে ভুলবেন না যেন!

খাবারে ওমেগা রাখুন: চুলের জন্য সবচেয়ে কার্যকরী এক উপাদান হলো ওমেগা। চুল পড়ার সমস্যা রোধে ও নতুন চুল গজাতে উপাদানটি কাজ করে। তবে সাপ্লিমেন্ট হিসেবে ওমেগা গ্রহণের আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

ধূমপান ত্যাগ: ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ধূমপানের প্রভাব চুলের উপরও পড়ে থাকে। এতে চুলের ফলিকল নষ্ট হয়। ফলে চুল পড়া বেড়ে যায়। এ কারণেই ধূমপায়ীদের চুল দ্রুত পেকে যায় ও টাক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

প্রোটিন গ্রহণ: প্রতিদিন পর্যাপ্ত প্রোটিন জাতীয় খাবার গ্রহণ করুন। যখন আপনার শরীর পর্যাপ্ত প্রোটিন পাবে না; তখনই চুল পড়া শুরু হয়। দিনে অন্তত ৫০-১০০ গ্রাম প্রোটিন গ্রহণ করা উচিত। তবে অবশ্যই ওজন নিয়ন্ত্রণে রেখেই তা গ্রহণ করতে হবে।

খাবারে ভিটামিন: পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার বিকল্প নেই। শরীর যদি নির্দিষ্ট পরিমাণে বিভিন্ন ভিটামিন না পায়, তবে চুলেও পুষ্টি পৌঁছায় না। এজন্য সুষম খাবার খাদ্যতালিকায় রাখা উচিত। এতে নতুন চুল গজাবে দ্রুত আর চুল পড়াও বন্ধ হবে। তবে চুলের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় উপাদান হলো- ভিটামিন-এ, বায়োটিন, ভিটামিন-সি, ভিটামিন-ডি, আয়রন এবং জিঙ্ক।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: