আফিফ-তৌহিদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ঢাকাকে ১৯৪ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিলো বরিশাল


আফিফ-তৌহিদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ঢাকাকে ১৯৪ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিলো বরিশাল

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ টুর্নামেন্টে প্লে-অফে যাওয়ার লড়াইয়ে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে রান সংগ্রহ করেছে ফরচুন বরিশাল। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন তৌহিদ হৃদয়।

 

টুর্নামেন্টে আগেই প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে বেক্সিমকো ঢাকা। বরিশালের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ জিতলেই পয়েন্ট টেবিলে দ্বিতীয় স্থানে উঠার সুযোগ রয়েছে ঢাকার সামনে। সেই লক্ষ্য নিয়ে বরিশালের বিপক্ষে ম্যাচে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। টস হেরেও ব্যাটিংয়ের শুরুটা দারুণ করেন বরিশালের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সাইফ হাসান।

Also Read – ভুল থেকে শিখতে না পারলে ফলাফল এমনই হবে : শান্ত

আগ্রাসী ব্যাটিং না করলেও ঢাকার বোলারদের বেশ বুঝেশুনেই খেলেন তামিম এবং সাইফ। তবে এই দুই ব্যাটসম্যানের জুটি ভাঙে দলীয় ৫৯ রানে। ঢাকার নিয়মিত বোলাররা যখন দলকে উইকেট এনে দিতে ব্যর্থ তখন আল-আমিন জুনিয়রকে বোলিংয়ে আনেন মুশফিক। আর এতেই সাফল্য পায় ঢাকা। আল-আমিনকে ডাউন দ্য উইকেটে মারতে গিয়ে লং অফে সাব্বিরের হাতে ক্যাচ তুলে সাজঘরে ফিরেন বরিশালের অধিনায়ক তামিম (১৯)।

এই ম্যাচে ব্যক্তিগত স্কোর বড় করতে পারেননি পারভেজ হোসেন আফিফ। দলীয় ৮২ রানে মুক্তার আলীর বলে ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ তুলে দেন ইমন (১৩)। অন্যদিকে ব্যাট হাতে ৪১ বলে ফিফটি তুলে নেন সাইফ। ফিফটি তুলে বেশিক্ষণ ক্রিজে টিকতে পারেননি এই ব্যাটসম্যান। দলীয় ১০২ রানে রুবেলের বলে উইকেটকিপার মুশফিকের হাতে সহজ ক্যাচ তুলে দিয়ে সাজঘরে ফিরেন সাইফ (৫০)।

সাইফ বিদায় নিলেও বরিশাল দলের ব্যাটিংয়ে হাল ধরেন আফিফ হোসেন। পুরো টুর্নামেন্টে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে ব্যর্থ হলেও ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচে শরিফুলের বলে জীবন পেয়ে সেটি কাজে লাগান আফিফ।

তৌহিদকে সঙ্গে নিয়ে দলীয় সংগ্রহ বড় করতে থাকেন আফিফ। দুই ব্যাটসম্যানই আগ্রাসী ব্যাটিং করেন। শেষদিকে মাত্র ২৫ বলে ফিফটি তুলে নেন আফিফ। শহিদুলের শেষ বলে চার মেরে ফিফটি তুলে নেন তৌহিদও। শেষ পর্যন্ত ৩ উইকেট হারিয়ে ১৯৩ রান করে বরিশাল।  শেষ ১২ বলে ৩৫ রান করেন তৌহিদ হৃদয়।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: