বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলব— জাতির পিতার এই স্বপ্ন পূরণ করব


সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে চলবে— জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এই স্বপ্ন পূরণের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত এবং সমৃদ্ধ এক বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে উদ্যোগী হতেও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আজ বিজয় দিবসে একুটু বলব— এটা আমাদের প্রতিজ্ঞা যে জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তুলব। জাতির জনক ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ দেখতে চেয়েছিলেন। সেই বাংলাদেশ গড়ে তুলতে তার আদর্শ বুকে নিয়ে মানুষের পাশে থাকব। আমরা আর কখনো কারও কাছে মাথা নত করে চলব না। বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলব। জাতির পিতার এই স্বপ্ন আমরা পূরণ করব।

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। আলোচনায় সভায় সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে আলোচনায় যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী।

আলোচনায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে কেউ কেউ কথা ওঠানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু মনে রাখতে হবে, আমরা অসাম্প্রদায়িক দেশ। আমরা ইসলাম ধর্মাবলম্বী। কিন্তু এই মাটি ইসলাম, হিন্দু, খ্রিষ্টান, বৌদ্ধসহ সব ধর্মাবলম্বী মানুষের দেশ। হিন্দু-মুসলিম সবাই এক হয়ে রক্ত ঢেলে দিয়ে আমরা স্বাধীনতা এনেছি। সেই স্বাধীন দেশে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে প্রত্যেকের যার যার ধর্ম পালনের স্বাধীনতা থাকবে। ইসলাম আমাদের সেই শিক্ষাই দিয়ে থাকে। আমাদের মহানবী (সা.) সেই শিক্ষাই দিয়েছেন।

তিনি বলেন, সবাইকে যেকোনো পরিস্থিতি সহনশীলতার সঙ্গে মোকাবিলা করতে হবে। কে কী বললো, সেটি না শুনে দেশের জন্য কতটুকু করতে পারি, সেটিই দেখেতে হবে। তাহলেই সঠিক কাজটি আমরা করতে পারব।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে শারীরিকভাবে কোনো অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে না পারার বিষয়টিকে ‘জেলখানার বন্দি জীবনে’র সঙ্গে তুলনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, মনে হয় জেলখানার মতো বন্দি জীবনে বসে আছি। এই পরিস্থিতি শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বেই। কিভাবে এই অবস্থা থেকে মুক্তি মিলবে, সেটি এখনো কেউ জানি না। তবে আমরা ভ্যাকসিন আসার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। ভ্যাকসিন পেয়ে যাব। তারপরও সবচেয়ে বড় কথা, মাস্ক পরে থাকবেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। সাবান বা স্যানিটাইজার ব্যবহার করে হাতটা পরিষ্কার রাখতে হবে। আর ঘোরাঘুরি একটু কম করবেন। সবাই সুস্থ থাকার চেষ্টা করবেন। মাস্ক পরে থাকবেন।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে সরকার এবং আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোর ভূমিকা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সরকার হিসেবে আমরা আমাদের দায়িত্বটা পালন করে যাচ্ছি। ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। প্রণোদনার মাধ্যমে অর্থনীতিকে গতিশীল করার চেষ্টা করছি। প্রতিটি মানুষের সমস্যা শুনে সেগুলো সমাধানের চেষ্টা করছি। আমরা সরকারের পক্ষ থেকে যেমন কাজ করছি, তেমনি আওয়ামী লীগও কাজ করছে। শুধু আওয়ামী লীগ নয়, আমাদের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন যেগুলো আছে— যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগসহ প্রতিটি সংগঠন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আমি তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

সারাবাংলা/টিআর





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: