‘গোলাপি বলে রাতে ব্যাট করা বেশ কঠিন’


‘গোলাপি বলে রাতে ব্যাট করা বেশ কঠিন’

ফ্লাডলাইটের আলোর নিচে অসংখ্য ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে লড়াই জমিয়েছে অনেকবার। তবে গোলাপি বলের ক্রিকেটে একবারই মাঠে নামার সুযোগ হয়েছে টাইগারদের। সেবার বিরাট কোহলিদের কাছে রীতিমত নাস্তানাবুদ হতে হয়। সেই ম্যাচে ভারতীয় পেসারদের মুখোমুখি হওয়ার ভয়ঙ্কর স্মৃতি সামনে এনেছেন মুনিমুল হক।

গতবছর প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্ট খেলে ভারত-বাংলাদেশ। সেদিন জমকালো আয়োজনে ঐতিহ্যবাহী ইডেন সেজেছিল নতুন সাজে। তবে রঙিন হয়নি বাংলাদেশ দলের পারফরম্যান্স। সেই ম্যাচে ইনিংস ও ৪৬ রানের ব্যবধানে হারে সফরকারীরা। যেখানে এর আগে গোলাপি বলে না খেললেও টাইগার ব্যাটসম্যানদের বড়সড় পরীক্ষা নিয়েছিলেন ভারতীয় পেসাররা।

Also Read – বাংলা টাইগার্সের প্রধান কোচের পদ হারালেন আফতাব

বাংলাদেশের সঙ্গে দিবারাত্রির টেস্টের পর এবার দ্বিতীয়বারের মতো ফ্লাডলাইটের আলোর নিচে সাদা পোশাকে খেলতে নেমেছে ভারত। তাদের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া। এই ম্যাচ শুরুর আগে ভারতীয় দৈনিক আনন্দবাজারের সঙ্গে কথা বলেছেন মুমিনুল।

যেখানে বাংলাদেশ দলের টেস্ট অধিনায়ক ইডেন টেস্টের স্মৃতি সামনে এনে বলেছেন, গোলাপি বলে রাতের দিকে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠেন উমেশ যাদব, মোহাম্মদ শামিরা। মুমিনুল জানান, ‘গোলাপি বলে রাতে ব্যাট করা বেশ কঠিন। বিপক্ষে যদি উমেশ, শামির মতো বোলার থাকে তা হলে অস্বাভাবিক হয়ে যায়। ইডেনে আমি বেশিক্ষণ টিকতে পারিনি। সুইং ও গতিতে খেই হারিয়ে ফেলি।’

‘তবে মুশফিক ভাই (মুশফিকুর রহিম) রান পেয়েছিল। তার অভিজ্ঞতা জানতে চাওয়ায় তিনি বলেছিলেন, শুরুর দিকে বল সুইং করে ঠিকই। ৩৫ ওভারের পর থেকে সাদা বলের মতোই আচরণ করে। সেই সময়টা প্রচুর রান ওঠে। তবে রাতের দিকে উমেশ, শামিরা যে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছিল, তা স্বীকার করেছিল।’– সাথে যোগ করেন তিনি।

গোলাপি বলে রাতে ব্যাট সহজ নয় বলেও জানান মুমিনুল, ‘রাতে যদি কোনও দল ব্যাট করে, তাদের সমস্যায় পড়ার সম্ভাবনা বেশি। গোধূলি হওয়ার সময় বল ঠিক মতো দেখা যায় না। স্লিপে ফিল্ডিং করাও কঠিন হয়ে যায়।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: