দুর্নীতি করতেই ভ্যাকসিন আমদানিতে মধ্যস্বত্ত্বভোগী নিয়োগ: ফখরুল


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দুর্নীতি করতেই ভ্যাকসিন আমদানিতে ‘মধ্যস্বত্ত্বভোগী’ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রোববার (১০ জানুয়ারি) গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভ্যাকসিন সরাসরি না কিনে মধ্যস্বত্ত্বভোগী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে দুর্নীতি করার জন্য। এর মাধ্যমে জনগণের অর্থ নয়-ছয় করা হবে। সরকারি সুবিধাভোগী পদধারী মধ্যস্বত্ত্বভোগী নিয়োগ দিয়ে নীতিগতভাবেই শুধু নয়, আইনগতভাবেও অপরাধ করা হয়েছে। বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সভা মনে করে, সরকারের লাভজনক পদে থাকা কোনো ব্যক্তি যিনি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তা তার এই (ভ্যাকসিন ক্রয়) সম্পৃক্ততা বেআইনি ও অপরাধমূলক।’

তিনি বলেন, ‘মানুষের জীবন রক্ষাকারী ভ্যাকসিন আমদানি প্রক্রিয়ায় অস্পষ্টতা, স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতির ফলে জনগণের এই টিকা প্রাপ্তি অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। ভ্যাকসিন কবে আসবে- এটা নিয়ে গোটা জাতির সঙ্গে আমরাও চরমভাবে উদ্বিগ্ন। এখন পর্যন্ত তারা (সরকার) কোনো সুনির্দিষ্ট সময়ও নির্ধারণ করতে পারেনি।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভারত থেকে যে ভ্যাকসিন আনা হবে তারও কোনো নিশ্চিয়তা এখন পর্যন্ত আমরা পাইনি। কারণ, ভারতের হাই কমিশনার বলেছেন- আগে ভারতের চাহিদা মেটানো হবে, তারপরে তারা নির্ধারণ করবেন। তাদের পররাষ্ট্র সচিবও একই কথা বলছেন। আমরা পত্র-পত্রিকায় দেখছি যে, শ্রীলংকার সাথে তারা চুক্তি করেছেন। সেক্ষেত্রে শ্রীলংকাকে তারা অগ্রাধিকার দেবেন।’

তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিনটা হচ্ছে জীবন রক্ষার একট বিষয়। সেই ভ্যাকসিন নিয়েও তারা দুর্নীতি করছে। যেটা আমরা পত্র-পত্রিকায়ে দেখছি। এই সরকার যে পুরোপুরিভাবে দায়িত্বজ্ঞানহীন এবং জনগণের প্রতি যে তাদের কোনোরকম দায়-দায়িত্ব নেই, সেটাই এখানে প্রমাণিত।’

ভ্যাকসিন আমদানির দায়িত্ব শেয়ারবাজার লুণ্ঠনকারী বির্তকিত বেক্সিমকো গ্রুপকে প্রদানের সিদ্ধান্তে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে— জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে (সাবেক অ্যাপোলো) চিকিৎসাধীন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের আশু রোগমুক্তির কামনায় দেশবাসীর কাছে দোয়া চাওয়া হয়েছে স্থায়ীকমিটির সভায়।’

মেয়রকাণ্ডে দুর্নীতির সর্বগ্রাসী চিত্র প্রকাশ হয়েছে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এটা দিয়ে দুর্নীতির সর্বগ্রাসী চিত্র প্রকাশিত হয়েছে। কারণ, একজন বর্তমান মেয়র, আরেকজন সাবেক মেয়র। বর্তমান মেয়র অভিযোগ করছেন যে, সাবেক মেয়র দুর্নীতি করেছেন। তার মুখ দিয়ে বেরিয়ে আসছে যে, আগে দুর্নীতি কী হয়েছে। যারা এখন আছেন, তারা কি করছেন সেটাও আমরা পত্র-পত্রিকায় দেখতে পারছি। সুতরাং বর্তমানে দেশে দুর্নীতির সর্বগ্রাসী যে চিত্র সেটাই বেরিয়ে এসছে।’

সারাবাংলা/এজেড/পিটিএম





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *