করোনা ভ্যাকসিন আনতে মধ্যস্বত্বভোগী না রাখার দাবি


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন আনার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের মধ্যস্বত্বভোগী না রাখার দাবি জানিয়েছেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক।

তিনি বলেন, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে মুনাফাকেন্দ্রিক যেকোনো ধরনের ব্যবসা ও মধ্যস্বত্বভোগী রাখার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে। এই ভ্যাকসিন নিয়ে জনগণ কোনো ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ব্ল্যাকমেইলের শিকার হতে পারে না।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন পার্টির রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য বহ্নিশিখা জামালী, আকবর খান, আবু হাসান টিপু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাশিদা বেগম, মোফাজ্জল হোসেন, মোশতাক, ইমরান হোসেন, মোজাম্মেল হোসেনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে সাইফুল হক কিছু দাবি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, করোনার টিকাকে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় ‘জনপণ্য’ বিবেচনা করে সরকারি ব্যবস্থাপনায় দেশের প্রতিটি নাগরিকের টিকাপ্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে। এজন্যে দেশের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সংক্রান্ত সমগ্র অবকাঠামো এবং চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য সহায়কসহ সংশ্লিষ্ট সমগ্র জনশক্তিকে উপযুক্ত নির্দেশনা ও প্রশিক্ষণসহ দক্ষতা ও যোগ্যতার সঙ্গে কাজে লাগাতে হবে।

সাইফুল হক বলেন, করোনা টিকার আমদানি, ব্যবস্থাপনা, প্রয়োগসহ গোটা পদক্ষেপ রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় করতে হবে। করোনা টিকা নিয়ে মুনাফাকেন্দ্রিক যেকোনো ধরনের ব্যবসা ও মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবস্থা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে। করোনা টিকা আমদানিতে জরুরিভিত্তিতে বিকল্প উৎস বের করতে হবে। প্রয়োজনে সম্ভব স্বল্পতম সময়ে বাংলাদেশে তার ট্রায়ালের ব্যবস্থা করতে হবে।

এসময় সিরাম ইনস্টিটিউটের ভ্যাকসিন ভারতের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ দামে আমদানি করার সমালোচনা করেন সাইফুল হক। তিনি বলেন, মধ্যস্বত্বভোগী হিসাবে বেক্সিমকো প্রতি ভ্যাকসিনে কত মুনাফা করছে, তা সবার জানা প্রয়োজন।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির এই নেতা বলেন, বেক্সিমকো সরকারকে জিম্মি করে সরকারের কাছেও ভ্যাকসিন বিক্রি করবে। আবার আরও উচ্চমূল্যে খোলা বাজারেও ভ্যাকসিন বিক্রি করে বেশুমার মুনাফা হাতিয়ে নেওয়ার পাঁয়তারা করছে। এই অপতৎপরতা বন্ধ করতে হবে। টিকা প্রয়োগের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক, দলীয় প্রেশার গ্রুপ বা যেকোনো ধরনের পক্ষপাতিত্ব পরিহারের আহ্বান জানান তিনি।

ফাইল ছবি

সারাবাংলা/এএইচএইচ/টিআর





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *