স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী: ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী কমিটির সভা


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে বিএনপি গঠিত ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী কমিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২০ জানুয়ারি) গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এ সভা হয়। এতে অংশ নেয় সারাদেশে থেকে আসা ১২টি জাতিগোষ্ঠীর নেতারা।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন বিএনপির জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, বিশেষ অতিথি ছিলেন সদস্য সচিব আব্দুস সালাম ও আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. সুকোমল বড়ুয়া। সভায় সভাপতিত্ব করেন স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী বিষয়ক উপকমিটির আহ্বায়ক কর্নেল (অব.) মনিষ দেওয়ান।

১২ জাতিগোষ্ঠীর প্রতিনিধিদের মধ্যে ছিলেন— লুশৈপ্র (মারমা সম্প্রদায়), লুঙা খুমি (খুমি সম্প্রদায়), বাশধর দ্রুং (গারো সম্প্রদায়), লাল কিলময় (পাংখোয়া সম্প্রদায়), লামলাই (স্নো সম্প্রদায়), নসরাং ত্রিপুরা (ত্রিপুরা সম্প্রদায়), হরিশ্চন্দ্র তঞ্চঙ্গা (তঞ্চঙ্গ সম্প্রদায়), অজূর্ন মনি চাকমা (চাকমা সম্প্রদায়), মাইলুক পাকদির বম (বম সম্প্রদায়), স্লামাচিং খেয়াং (খেয়াং সম্প্রদায়), মাচিং সা (চাক সম্প্রদায়)।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন— দীপেন দেওয়ান (সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক, জাতীয় নির্বাহী কমিটি বিএনপি), জন গোমেজ (সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক, জাতীয় নির্বাহী কমিটি বিএনপি), সাচিং প্রো জেরী (সদস্য, জাতীয় নির্বাহী কমিটি বিএনপি), সুশীল বড়ুয়া (সদস্য, জাতীয় নির্বাহী কমিটি বিএনপি), এলভার্ট পি কস্টা (সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, যুবদল) ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মং শৈলা চৌধুরী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘সকল ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে খুঁজে বের করে আমাদের জাতীয় কমিটির পক্ষ থেকে এমন করে সম্মাননা জানাব, যেন অন্য জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে কোনো রকম তফাৎ না থাকে।’

সারাবাংলা/এজেড/টিআর





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *