ওটস এর স্বাস্থ্য উপকারিতা | ডিএমপি নিউজ


ওটস হল নানান পুষ্টি উপাদান সমৃদ্ধ খাবার। ওটসে প্রচুর ফাইবার এবং অ্যাভিন্যানথ্রামাইড থাকে, যা স্বাস্থ্য সুরক্ষায় খুবই কার্যকর। অ্যাভিন্যানথ্রামাইড ধমনীতে প্রদাহ কমায় এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এছাড়াও ওটসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন, প্রোটিন, ভিটামিন বিসহ একগুচ্ছ পুষ্টি উপাদান। বিশেষত ওটসে রয়েছে ভিটামিন বি যা শরীরে কার্বোহাইড্রেট হজমে সাহায্য করে।

আসুন তাহলে জেনে নিন ওটসের আরও স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে-

* কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রন করেঃ ওটসে রয়েছে বেটা গ্লুকোন নামক বিশেষ ধরনের ফাইবার যা শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। প্রতিদিন তিন গ্রাম ওটস খেলে তা প্রায় আট থেকে দশ শতাংশ পর্যন্ত কোলেস্টেরল কমানোর সহায়ক।

* হার্ট ভালো রাখেঃ ওটসে রয়েছে বিশেষ এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান যা শরীরের ভালো কোলেস্টেরল মানে এলডিএলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। আর এর ফলে হৃদরোগের ঝুঁকিও কমে।

* রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করেঃ অতিরিক্ত মানসিক চাপ বা দুশ্চিন্তার কারণে হাইপারটেনশনের ঝুঁকি কমায় ওটস। * ইমিউনিটি বাড়ায়ঃ ওটসের বেটা-গ্লুকোন শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা ইমিউনিটি সিস্টেমকে বৃদ্ধি করে। শরীরে ব্যাক্টিরিয়া জনিত ইনফেকশন প্রতিরোধেও সাহায্য করে ওটস।

* ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনঃ ডায়াবেটিস রোগীরাও তাঁদের খাদ্য তালিকায় শামিল করতে পারেন ওটস। লো ক্যালোরি ও সুগার ফ্রি হওয়ায় ডায়াবেটিসের রোগীরা অনায়াসেই এটি ব্রেকফাস্টে রাখতে পারেন।

* হজমে সাহায্যকারীঃ হজম ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে ওটস। যাঁরা কোষ্ঠকাঠিন্য বা হজমের সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের জন্য ওটস দারুণ উপকারী। কেননা এতে থাকা ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। তাছাড়া লিভারের জন্যও ওটস উপকারী।

* ওজন কমাতে সহায়কঃ ওটস খাওয়ার পর দীর্ঘসময় পেট ভরা ভাব অনুভূত হয়। ফলে চট করে খিদে পায় না। এর কারন হল এতে থাকা গলুকোন ও পেপটাইডের বন্ধন। এই দুই উপাদান হল ক্ষুদা নিয়ন্ত্রণকারী হরমোন।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *