মিরাজকে যে মন্ত্র দিয়েছিলেন সাকিব


মিরাজকে যে মন্ত্র দিয়েছিলেন সাকিব

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির ইনিংসটি গড়ার সময়ে দলের অন্যতম অভিজ্ঞ ও সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকে পাশে পেয়েছিলেন মিরাজ। তার মনে আত্মবিশ্বাস জুগিয়ে থিতু হতে সাকিব কীভাবে সাহায্য করছেন তা জানিয়েছেন এই তরুণ ক্রিকেটার।

মিরাজকে যে মন্ত্র দিয়েছিলেন সাকিব
সাকিব আল হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ। ছবি : বিডিক্রিকটাইম

চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিন সকালে দ্বিতীয় ওভারেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বাঁহাতি স্পিনার জোমেল ওয়ারিকানের বলে বোল্ড হয়ে যান লিটন দাস। তার বিদায়ের পরে মাঠে নামেন মিরাজ। যোগ দেন সাকিবের সাথে। ততক্ষণে ২৪৮ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ। তাই আটে নামা মিরাজ বেশ ঘাবড়ে ছিলেন।

ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, আমি যখন উইকেটে এসেছি, তখন একটু নার্ভাস ছিলাম। সাকিব ভাইয়ের সাথে আমি কথা বলছিলাম যে, ভাই কী করলে ভালো হয়। সাকিব ভাই একটা কথা বলেছিলেন যে স্বাভাবিকভাবে ক্রিকেট খেলতে এবং যদি আত্মবিশ্বাস থাকে যে মারলে পার হয়ে যাবে বা যে শটই খেলি যেন আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলি।’

Also Read – ব্যাটসম্যান হিসেবে দলে নিজের জায়গা দেখেন না মিরাজ

মিরাজ কোনো নির্দিষ্ট শট খেলার আগে সাকিবের সাথে আলোচনা করে নিচ্ছিলেন। তার সিদ্ধান্তের সাথে দ্বিমত জানিয়ে সাকিব অন্য মন্ত্র দিলে তাই মেনে খেলেছেন এবং পেয়েছেন সাফল্য। এই ব্যাপারে মিরাজ বলেন,

‘যেমন মাঝখানে হয়তো আমি নিজের চাপ কমানোর জন্য একটা স্লগ সুইপ চেষ্টা করব, তখন সাকিব ভাই আমাকে বলেন, এখানে স্লগ সুইপের চেয়ে প্যাডল সুইপ করলে ভালো। তখন আমার মাথায় চিন্তাটা কাজে লেগেছে, আমি যদি স্লগ সুইপের বদলে প্যাডল সুইপ খেলি তাহলে হয়তো ভালো হবে, আউট হওয়ার চান্স কম থাকবে।’

২৩ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার জানান, দলে যখন সিনিয়র ক্রিকেটাররা জুনিয়র ক্রিকেটারদের ওপিঠ আস্থা রাখে ও সাহস দেয়, তখন জুনিয়রদের জন্য ভালো পারফর্ম করার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায় ও কাজটা সহজও হয়ে যায়।

মিরাজের ভাষ্যমতে, ‘এসব ছোট ছোট জিনিস অনেক গুরুত্বপূর্ণ, যা আমাকে হয়তো সাহস দিয়েছে। যেমন নামার আগে মুশফিক ভাই হয়তো দুই-একটা কথা বলেছে, এই উইকেটে অনেক সুযোগ আছে, ভালো কিছু যেমন ৭০ রানে নটআউট থাকতে পারবি- এ জিনিসগুলো যখন ড্রেসিংরুমে সিনিয়র খেলোয়াড়েরা বলে ব্যাকআপ করে জুনিয়র খেলোয়াড়দেরকে, তখন কিন্তু আমাদের বুক অনেক বড় হয়ে যায় এবং ভালো করতে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করা যায়।’

প্রথম সেঞ্চুরি হাঁকানোর ইনিংসে মিরাজ করেন ১০৩ রান। বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪৩০ রান। সাকিবের ব্যাট থেকে আসে ৬৮ রান।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *