সাকিব ইস্যুতে বিব্রত নন তবে মন খারাপ পাপনের


সাকিব ইস্যুতে বিব্রত নন তবে মন খারাপ পাপনের

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ বাদ দিয়ে আইপিএলে খেলবেন বাংলাদেশ দলের অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। এই ইস্যুতে সোমবার মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলেছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দেশের হয়ে টেস্ট না খেলে আইপিএলকে প্রাধান্য বেশি দিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার সাকিব। বিষয়টি নিয়ে এতদিন বাংলাদেশ ক্রীড়াঙ্গনে তোলপাড় হলেও এই ইস্যুতে এতদিন মুখ খোলেননি বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান। তবে সোমবার বোর্ড মিটিং শেষে সাংবাদিককের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

Also Read – ইঞ্জুরিটা তো দুর্ঘটনাবশত, ওইটাতে তো আমার হাত নেই : তাসকিন

সাকিবের এমন কাণ্ডে হতাশ হয়েছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান। সাকিবকে নিয়ে মিডিয়ায় প্রকাশ্যেই হতাশা প্রকাশ করেন এই বিসিবি প্রধান। তিনি বলেন,

“এখানে বিব্রত ঠিক না, মন খারাপ। আমাকে যদি বলেন, মন খারাপ। আমাদের মনটা খারাপ। কেনো? একটা খেলোয়াড়দের পেছনে তো বোর্ড কম ইনভেস্ট করে না। বোর্ড ১০-১৫টা বছর যে ইনভস্টমেন্ট করে সেটা আপনাদের সবার জানা আছে কি না আমি জানি না। সব কিছু মিলিয়ে এখনকার ক্রিকেটারদের যে ধরণের সুবিধা দেওয়া হয় সেটা তো অতীতে চিন্তাও করা যেত না।”

তিনি আরও যোগ করেন, “সে জায়গায় দল দুটা টেস্ট ম্যাচ হারের পর… শুধু এই সিরিজ না, আমরা হেরেছি আফগানিস্তানের সাথে, আমরা হেরেছি পাকিস্তানের সাথে, আমরা ভারতের সাথে বাজেভাবে হেরেছি এবং ঘরের মাঠে দুটো টেস্ট হারলাম। এরপরে কেউ যদি বলে আমি টেস্ট খেলব না ফ্র্যাঞ্চাইজি খেলব, তাহলে এরপরে আর কিছু বলার থাকে না। আমাদের মাইন্ড ক্লিয়ার, কাউকে আমরা জোর করে রাখব না।”

সাকিব ইস্যুতে ক্ষোভ প্রকাশ করতে গিয়ে অতীতের কথাও টেনে আনেন বিসিবি প্রধান। তবে তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন কাউকে জোর করে খেলিয়ে আর সময় নষ্ট করতে চায় না বিসিবি।

“একটা জিনিস একটা খেয়াল রাখবেন দেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে আজকের যারা ওয়ার্ল্ডের বেষ্ট ক্রিকেটার তাদের প্রথম ছয় বছরের গড় দেখেন! আমরা তো তখন বাদ দেইনি। তারপরেও আমরা তাদের সুযোগ দিয়েছি, সময় দিয়েছি, তারা আজকে এই জায়গায় এসেছে। যে সময়টায় তারা দেশের জন্য কিছু করবে… এটা অবশ্য তাদের ইচ্ছে। বিশেষ করে আমরা টেস্টে জোর করে খেলাতে চাই না। আমরা আর সময় নষ্ট করতে চাই না।”



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *