আম্পায়ারদের ক্যাপ রাখতে সমস্যা কোথায়, প্রশ্ন আফ্রিদির


আম্পায়ারদের ক্যাপ রাখতে সমস্যা কোথায়, প্রশ্ন আফ্রিদির

করোনাপরবর্তী ক্রিকেটে অনেক ‘প্রথম’ এর দেখা পাচ্ছেন দর্শকরা। ফাঁকা গ্যালারি, লালা না ঘষেই পেসারদের দক্ষযজ্ঞ, কখনো হ্যান্ডশেকের বদলে রিস্ট বাম্প। প্রত্যেক ‘প্রথম’ এর ব্যাখ্যা থাকলেও অনেকেই ব্যাখ্যা খোঁজে পাচ্ছেন না- ক্রিকেটারদের মাথায় কেন একাধিক ক্যাপ?

আম্পায়ররা ক্যাপ রাখতে সমস্যা কোথায়, প্রশ্ন আফ্রিদির

পাকিস্তানি অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদিও তাদেরই একজন। পাকিস্তানের এই কিংবদন্তি ক্রিকেটার বুঝে উঠতে পারছেন না- খেলোয়াড়দের সাথে বায়োবাবলে থেকে, ম্যাচের পর করমর্দন করে আম্পায়াররা কেন বোলারের টুপি নিজের কাছে গচ্ছিত রাখতে পারেন না।

Also Read – অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড পৃথ্বীর

এক টুইট বার্তায় পিএসএলে মশগুল আফ্রিদির কৌতূহলী প্রশ্ন-

‘আইসিসি, আমি ভেবে পাচ্ছি না আম্পায়াররা কেন বোলারদের ক্যাপ তাদের কাছে রাখতে পারেন না যেখানে কিনা খেলোয়াড় ও ম্যানেজমেন্টের সাথে একই বাবলে তারা থাকছেন, এমনকি ম্যাচ শেষে করমর্দনও করছেন।’

মহামারীর ফাঁড়া কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতোমধ্যে পুরোদমে মাঠে ফিরেছে, তবে কিছু পরিবর্তনকে সাঙ্গ করে। হোক আন্তর্জাতিক, ঘরোয়া কিংবা প্রস্তুতি ম্যাচ- প্রায়শই দেখা যাচ্ছে ক্রিকেটারদের মাথায় একাধিক ক্যাপ। ভাইরাস সংক্রমণের শঙ্কা ঠেকাতে আইসিসি বেশ কিছু নীতিমালা প্রণয়ন করেছে। তার মধ্যে একটি হল- আম্পায়াররা ক্রিকেটারদের ক্যাপ, সোয়েটার, সানগ্লাস- এগুলো বহন করতে পারবেন না।

মহামারীর আগে কোনো ক্রিকেটার তার সুবিধার্থে আম্পায়ারের কাছে এসব জিনিস রাখতে পারতেন। তবে স্পর্শের মাধ্যমে ছড়ায় ভাইরাস। আম্পায়ারদের যথাসম্ভব ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে দূরে রাখতে আইসিসির এই নিয়ম- আম্পায়ারের কাছে খেলোয়াড়ের কিছু গচ্ছিত রাখা যাবে না। বিশ্বজুড়ে আম্পায়ারদের বড় অংশের বয়স বৃদ্ধের কাতারে। বয়স্কদের জন্য করোনা একটু বেশিই ভয়ংকর। কোনো বোলার বল করতে এলে, কিংবা ফিল্ডিংয়ের প্রয়োজনে কোনো ফিল্ডার আউটফিটে পরিবর্তন আনলে তবে উপায়? আম্পায়ার যেহেতু তার ক্যাপ, সোয়েটার বা সানগ্লাস গচ্ছিত রাখবেন না, তা সামলাতে হচ্ছে দলের কোনো ক্রিকেটারকেই। সাধারণত অধিনায়ক বা সিনিয়র ক্রিকেটারদেরই দেখা যাচ্ছে সতীর্থের ক্যাপ বা অন্য কিছু নিজের কাছে রাখতে।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *