আইসোলেশনের জড়তা নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না, বিশ্বাস তামিমের


আইসোলেশনের জড়তা নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না, বিশ্বাস তামিমের

এক দিন আগে মেহেদী হাসান মিরাজ জানিয়েছিলেন, এ যেন জেলখানায় থাকার অভিজ্ঞতা। এবার ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের কণ্ঠেও অসহায়ত্বের সুর। বিদেশ সফরে আইসোলেশন আর কোয়ারেন্টিনের কঠোর বাধ্যবাধকতা মেনে নেওয়া ছাড়া যে বিকল্প কিছু নেই বাংলাদেশ দলের! 

কঠিন প্রটোকলের সামনে তামিমরা, উদ্বিগ্ন বিসিবি

এই কঠোর কোভিড নীতিমালার কারণেই গত সেপ্টেম্বরে শ্রীলঙ্কা সফরে যায়নি বাংলাদেশ দল। এবার নিউজিল্যান্ড সফরে এসেও সেই কঠিন পরিস্থিতিটাই। এক সপ্তাহ থাকতে হবে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে, হাল আমলে যাকে বলে ঠিক আইসোলেশন। প্রথম ৩ দিন রুমে আটকে থাকার পর এখন প্রতিদিন ৩০ মিনিট করে হাঁটার সুযোগ পান ক্রিকেটাররা। হুট করে এমন জড়তা খেলোয়াড়দের ফিটনেস-পারফরম্যান্সে ঘাটতি ফেলে কি না, এমন প্রশ্ন উঠছে।

Also Read – আমরা যেকোনো দলকে হারাতে পারি : তামিম

ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম অনেকটা জোর করেই মানিয়ে নেওয়ার পক্ষে। তিনি বলেন, ‘ঠিক আছি… এটা তো এখন মেনে নিতে হবে। যেখানেই যাব ওখানেই এই নিয়মকানুন থাকবে। তাই ঠিকা আছে, অতো খারাপ না।’

তামিমের বিশ্বাস, অনুশীলনে ফিরলেই ছন্দ খুঁজে পাবে দল। তিনি বলেন, ‘অনুশীলনে ফিরলে প্রথম এক-দুই সেশন হয়ত একটু কঠিন হবে, যেহেতু এই কয়দিন চলাফেরা একদম কম ছিল। এক-দুই সেশনের পর ঠিক হয়ে যাবে। সব ঠিকঠাক থাকলে পরশুদিন থেকে আমরা জিমও করতে পারব। জিম করা শুরু করলে শরীর মানিয়ে নেওয়া শুরু করবে। ইনশাআল্লাহ সমস্যা হবে না।’

‘কাল সবার নেগেটিভ ফল এলে পরশু থেকে জিম ব্যবহার করতে পারব। অষ্টম দিন থেকে ছোট গ্রুপ হয়ে মাঠে গিয়ে অনুশীলনের অনুমতি পাব। মনে হচ্ছে অনেক দিন হয়ে গেল এভাবে। তবে অনুশীলন-জিম শুরু হয়ে গেলে আমরা আবার ক্রিকেটে মনোযোগ দিতে পারব।’– বলেন তামিম।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *