নিউজিল্যান্ডে ব্যাটিং-বোলিংয়ে সাফল্যের টোটকা দিলেন রিয়াদ


নিউজিল্যান্ডে ব্যাটিং-বোলিংয়ে সাফল্যের টোটকা দিলেন রিয়াদ

মাশরাফি বিন মুর্তজা নেই, অনুপস্থিত সাকিব আল হাসানও। নিউজিল্যান্ডে খেলার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন খেলোয়াড় দলে আছেন বটে, তবে খুব অভিজ্ঞদের মধ্যে বলা যায় শুধু মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের নাম। অতীতে নিউজিল্যান্ডে খেলার অভিজ্ঞতা থেকে সতীর্থদের জন্য ভালো করার দাওয়াই জানিয়েছেন টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক।

নিউজিল্যান্ডের আবহাওয়া তো বটেই, উইকেটও বাংলাদেশের প্রতিকূলে থাকে। পেস বান্ধব বলা হলেও নিউজিল্যান্ডে ভালো করা পেসারদের জন্যও সহজ নয়। আবার পেসারদের সামলানোটাও সহজ নয় ব্যাটসম্যানদের জন্য। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ডের অভিজ্ঞ ও দক্ষ বোলাররা তো ত্রাসই ছড়ান উপমহাদেশের ব্যাটসম্যানদের পেলে।

Also Read – রিয়াদের কণ্ঠে ‘অ্যাটাকিং ক্রিকেট’ খেলার প্রত্যয়

রিয়াদ তাই মনে করছেন, উইকেটে গিয়ে দ্রুত বাউন্স ও গতির সাথে মানিয়ে নেওয়াই হতে পারে ব্যাটসম্যানদের ভালো করার টোটকা।

তিনি বলেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব উইকেট কেমন তা বোঝার চেষ্টা করি আমি। উইকেটের বাউন্স মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করি। বাউন্সি উইকেটে বাউন্স তো বরাবরই থাকে। তাই বাউন্স এবং উইকেটের গতির সাথে তাড়াতাড়ি মানিয়ে নেওয়া অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সবসময় এই চেষ্টাই করি এবং বাজে বলের অপেক্ষা করি। বেসিক ক্রিকেট গুরুত্বপূর্ণ। বেসিক ঠিকভাবে করতে পারলে ফল ভালো হবে।’

নিউজিল্যান্ডে স্পিনারদের জন্য খুব বেশি প্রাপ্তির সুযোগ নেই। পেসারদেরও ভালো করতে হলে ঠিক রাখতে হবে লাইন ও লেন্থ। সেই তাড়নাই দিলেন টাইগারদের সীমিত ওভারের দলপতি।

রিয়াদের ভাষায়, ‘বোলারদের জন্য সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং হল তাদের একজিকিউশন লেভেন কোন জায়গায় আছে তা নিশ্চিত করা। এখানে লেন্থের বিষয়টা খুবই জরুরি। লেন্থে বেখেয়াল হলে বাউন্ডারির সুযোগ বেড়ে যায়। এই জায়গাটায় খেয়াল রাখতে হবে, বাউন্ডারির সুযোগ যেন না দেই এবং ঠিক লাইন-লেন্থে ধারাবাহিকভাবে বল করতে পারি।’



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *