রানা-ত্রিপাঠির বিধ্বংসী ব্যাটিং, শেষ বলে আউট সাকিব


রানা-ত্রিপাঠির বিধ্বংসী ব্যাটিং, শেষ বলে আউট সাকিব

চেন্নাইয়ে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) চতুর্দশ আসরের তৃতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। নিতিশ রানার বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে কলকাতা পেয়েছে বড় সংগ্রহের দেখা।

রানা-ত্রিপাঠির বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে সাকিবদের রানের পাহাড়
২০ রানের জন্য শতকের দেখা পাননি রানা। ছবি : বিসিসিআই

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে কলকাতার সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ১৮৭ রান। ব্যাট হাতে দলকে দারুণ শুরু এনে দেন ওপেনার নিতিশ রানা। যদিও তার সঙ্গী শুবমান গিল প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি।

দলের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে রশিদ খানের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন গিল। একটি করে চার ছক্কা হাঁকালেও সাজঘরে ফেরার আগে ১৩ বলে তার রান ছিল ১৫। ৫৩ রানে প্রথম উইকেটের পতনের পর ক্রিজে আসেন রাহুল ত্রিপাঠি। তাকে পেয়ে বিধ্বংসী ব্যাটিং শুরু করেন রানা। রানের গতি বাড়াতে থাকেন ত্রিপাঠি নিজেও।

Also Read – বাংলাদেশ সিরিজে দুই লঙ্কান ক্রিকেটারকে নিয়ে শঙ্কা

দ্বিতীয় উইকেটে দুইজন মিলে গড়েন ৯৩ রানের ঝলমলে পার্টনারশিপ। অর্ধশতক পূর্ণ করার পরপরই সাজঘরে ফিরতে হয় ত্রিপাঠিকে। তার আগে ২৯ বলে ৫৩ রান করেন ৫টি চার ও ২টি ছক্কা সহায়তায়।

তার বিদায়ের পর ক্রিজে নামলেও নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি আন্দ্রে রাসেল। ৫ বলে ৫ রান করে রাসেল রশিদের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরার পর দলের হাল ধরতে ২২ গজে আসেন অধিনায়ক ইয়ন মরগান। তবে অল্প সময়ের ব্যবধানেই সাজঘরের পথ ধরেন রানা। মোহাম্মদ নবীর বলে বিজয় শঙ্করের হাতে ক্যাচ তুলে দেওয়ায় ২০ রানের জন্য পাননি শতকের দেখা। ৫৬ বলে গড়া তার ৮০ রানের ইনিংসে ছিল ৯টি চার ও ৪টি ছক্কা।

রানার বিদায়ের পর একই কায়দায় আউট হন মরগান (৩ বলে ২ রান), ঠিক পরের বলেই। তার বিদায়ে ক্রিজে আসেন সাকিব, ব্যাটিং অর্ডারের সপ্তম ব্যাটসম্যান হিসেবে; দীনেশ কার্তিকের সাথে দলের সংগ্রহ যথাসম্ভব বাড়ানোর দায়িত্ব নিয়ে। সাকিবের সমর্থন পেয়ে কার্তিক শেষ ২ ওভারে চড়াও হন বোলারদের ওপর। ৯ বলে ২২ রান করে কার্তিক অপরাজিত থাকলেও শেষ বলে নিজের ৫ম ডেলিভারি মোকাবেলা করা সাকিব ভুবনেশ্বর কুমারের বল মিড উইকেটে আব্দুল সামাদের হাতে তুলে দেন। ৫ বলে ৩ রানে আউট হয়ে ইনিংস শেষ করে ফেরেন প্যাভিলিয়নে।

রানা-ত্রিপাঠির বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে সাকিবদের রানের পাহাড়
বল হাতে যথারীতি দ্যুতি ছড়িয়েছেন রশিদ। ছবি : বিসিসিআই

দলের অন্যরা খরুচে বোলিং করলেও নিয়ন্ত্রিত ছিলেন রশিদ। ৪ ওভার বল করে তিনি ২ উইকেট শিকার করেন মাত্র ২৪ রানের খরচায়। ২ উইকেট শিকার করেছেন রশিদের স্বদেশী নবীও।

কলকাতা নাইট রাইডার্স একাদশ : শুবমান গিল, রাহুল ত্রিপাঠি, নিতিশ রানা, ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), দীনেশ কার্তিক (উইকেটরক্ষক), আন্দ্রে রাসেল, সাকিব আল হাসান, প্যাট কামিন্স, হরভজন সিং, প্রসিধ কৃষ্ণ ও বরুণ চক্রবর্তী।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ একাদশ : ডেভিড ওয়ার্নার (অধিনায়ক), জনি বেয়ারস্টো, ঋদ্ধিমান সাহা (উইকেটরক্ষক), মনিশ পাণ্ডে, বিজয় শঙ্কর, আব্দুল সামাদ, মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান, ভুবনেশ্বর কুমার, থাঙ্গারাসু নটরাজন ও সন্দ্বীপ শর্মা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

টস : সানরাইজার্স হায়দরাবাদ

কলকাতা নাইট রাইডার্স : ১৮৭/৬ (২০ ওভার)
রানা ৮০, ত্রিপাঠি ৫৩, কার্তিক ২২, সাকিব ৩
রশিদ ২৪/২, নবী ৩২/২ নটরাজন ৩৭/১

জয়ের জন্য সানরাইজার্স হায়দরাবাদের প্রয়োজন ১৮৮ রান।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *