আক্রমণাত্মক ও ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে চায় বাংলাদেশ


আক্রমণাত্মক ও ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে চায় বাংলাদেশ

সাফল্যের খোঁজে দল মরিয়া। এমন সময়ে টিম লিডার হিসেবে শ্রীলঙ্কা সফরে যাচ্ছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। লঙ্কার উদ্দেশে উড়াল দেওয়ার আগে সুজন জানালেন, আসন্ন টেস্ট সিরিজে ক্রিকেটটারদের প্রাণপণে খেলতে দেখতে চান।

আক্রমণাত্মক ও ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে চায় বাংলাদেশf
শ্রীলঙ্কায় দারুণ কিছু রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। ফাইল ছবি

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঘরের মাঠে দুটি টেস্ট রীতিমত হেলায় হাতছাড়া করেছে বাংলাদেশ। জয়ের মোক্ষম সুযোগ থাকা সত্ত্বেও হোয়াইটওয়াশ হতে হয়েছে দুই ম্যাচের সিরিজে। সেই সিরিজের পর এবার আরেক টেস্ট সিরিজ, তাও অ্যাওয়ে সিরিজ।

এই সিরিজে বাংলাদেশের ভয়হীন ক্রিকেট দেখতে চান সুজন। তিনি বলেন, ‘যে মানসিকতা দুই বছর আগে দেখে এসেছি, সেই মনোভাবটা দেখতে চাই, খেলোয়াড়রা জান দিয়ে লড়াই করবে, চেষ্টা করবে। আক্রমণাত্মক ও ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে হবে। ফলাফল যাই হোক, লড়াই যেন করতে পারি।’

Also Read – ভেট্টোরির বাছাইকৃত রাজস্থানের একাদশে নেই মুস্তাফিজ

আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলার মন্ত্রের সাথে সুজনের কণ্ঠে এ-ও উচ্চারিত হল- ভালো খেললেও যেন পুরো ম্যাচব্যাপী দাপট দেখান যায়, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩-৪ দিন ডমিনেট করে শেষ দিনে হেরে গেছি। সেই ভুল যাতে না হয়। লম্বা সময় ডমিনেট করে যেন খেলতে পারি। দুই ইনিংসেই যেন ভালো ক্রিকেট খেলতে পারি।’

টিম লিডার হিসেবে দলের সদস্যদের ফুরফুরে ও মনোবল চাঙ্গা রাখার দায়িত্বটাও সুজনের। তার বিশ্বাস, হারের বৃত্তে থাকা দলকে প্রত্যাশা অনুযায়ী সহায়তা করতে পারবেন, ‘আমার নিজস্ব ধারণা, ভাবনা আছে। সেভাবেই চিন্তা করব। জানি কীভাবে ওদের সাথে কথা বলতে হয়। সবাই আমার কাছে পুরনো, নতুন কেউ নেই ওদের সবার সাথে কখনো না কখনো কাজ করেছি। ইনশাআল্লাহ পারব। যদিও সময় বেশি নয়, তবে যথেষ্ট সময় আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অবশ্যই আমরা জয়ের জন্যই খেলব। যদিও বাংলাদেশে সর্বশেষ সিরিজে ভালো করিনি। নিউজিল্যান্ডেও ভালো করিনি। আমাদের ভালো করার সামর্থ্য আছে। শ্রীলঙ্কায় আগেও খেলেছি, কন্ডিশনও জানি। চেষ্টা করবে সেরা ক্রিকেট খেলার।’



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *