লকুহেতিগেকে ‘৮’ বছরের নিষেধাজ্ঞা দিল আইসিসি


লকুহেতিগেকে ‘৮’ বছরের নিষেধাজ্ঞা দিল আইসিসি

অনৈতিক কাজে জড়িয়ে নিষেধাজ্ঞা পেয়েছিলেন আগেই। শাস্তির মাত্রা কেমন হয় বা নিষেধাজ্ঞা কয়দিনের হয় তাই দেখার বাকি ছিল। অবশেষে শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রিকেটার দিলহারা লকুহেতিগেকে ৮ বছরের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে আইসিসি।

ফিক্সিং কাণ্ডে নিষিদ্ধ হলেন লঙ্কান জাতীয় দলের ক্রিকেটার
দিলহারা লকুহেতিগে। ফাইল ছবি

৩৮ বছর বয়সী সাবেক ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ের অভিযোগে তাকে ইতিপূর্বে ‘সাময়িক’ নিষিদ্ধ করে আইসিসি। তখনই জানানো হয়, কোনো ধরনের ক্রিকেটীয় কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না তিনি। গত জানুয়ারিতে তার নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকার কথা জানায় আইসিসি। অভিযোগ প্রমাণের ভিত্তিতে এবার ৮ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হল, যে নিষেধাজ্ঞা গণনা করা হবে ২০১৮ সালের ৩ এপ্রিল থেকে।

তার বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ ছিল- ফিক্সিংয়ের ব্যাপারে আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগ আকসুকে যথাযথ তথ্যাদি সরবরাহ করেননি তিনি। এছাড়া আকসুর বিভিন্ন প্রশ্নের সদুত্তরও দিতে পারেননি। লকুহেতিগের বিরুদ্ধে আইসিসি মোট তিনটি অভিযোগ এনেছিল। তিনটি অভিযোগেই তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ- ফিক্সিংয়ের চেষ্টা করা, ফিক্সিংয়ে প্ররোচিত করা এবং আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগকে তদন্ত কাজে সহায়তা না করা।

Also Read – চেন্নাইয়ের বিপক্ষে আগে বোলিংয়ে মুস্তাফিজরা

২০১৮ সালে আরব আমিরাতে টি-টেন লিগে খেলার সময় লকুহেতিগের বিরুদ্ধে প্রথমবারের মত ম্যাচ গড়াপেটার অভিযোগ ওঠে। ঐ অভিযোগের তদন্ত কাজে আকসুকে সহায়তা না করায় নতুন অভিযোগ আসে তার বিরুদ্ধে, যার কারণে পেতে হয় সাময়িক নিষেধাজ্ঞা। এবার তিনটি অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় আজীবন ক্রিকেটীয় কর্মকাণ্ড থেকে দূরে থাকতে হতে পারে তাকে।

১৯৮০ সালে শ্রীলঙ্কার কলম্বোয় জন্ম নেওয়া এই ক্রিকেটার ২০০৫ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত জাতীয় দলের জার্সিতে খেলেছেন ৯টি ওয়ানডে ও ২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। এই অলরাউন্ডার অবশ্য আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। ফলে শ্রীলঙ্কা দলে নিয়মিত হতে পারেননি তিনি।

জাতীয় দলে সুযোগ না পেলেও খেলে যাচ্ছিলেন ঘরোয়া ক্রিকেট। ২০১৬ সালের পর অবশ্য নিজ দেশের ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা হয়নি তার, তবে খেলোয়াড় সত্তাকে বিদায় না জানিয়ে আগ্রহ ছিল বিভিন্ন বিদেশি লিগে।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *