চাইলেই ব্রাভোকে ‘মানকাডিং’ করতে পারতেন মুস্তাফিজ?


চাইলেই ব্রাভোকে ‘মানকাডিং’ করতে পারতেন মুস্তাফিজ?

আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে ৪৫ রানে হেরেছে মুস্তাফিজদের রাজস্থান রয়্যালস। তাঁদের হারের পেছনে অনেক যুক্তি থাকলেও জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার প্রশ্ন তুলেছেন মুস্তাফিজ ও ব্রাভোকে নিয়ে।

২০১৯ আইপিএলে জস বাটলারকে ‘মানকাডিং’ করে যে বিতর্কের সৃষ্টি করেছিলেন তাতে অনেকেই কঠোর সমলোচনা করেছেন অশ্বিনের। তারপর থেকেই ব্যাটসম্যানরা একটু সাবধানতা অবলম্বন করতে দেখা যায়। অবশ্য তাতেও কী ব্যাটসম্যানরা অতিরিক্ত সুবিধা নেওয়া বন্ধ করেছেন? এই বছরের আইপিএলেও এমন দৃশ্য দেখাও যেতে পারত।

Also Read – কলকাতার হারে ভক্তদের সমালোচনার ঝড়, দাবি বিদেশি খেলোয়াড় পরিবর্তনের

মুম্বাইতে চেন্নাই-রাজস্থানের ম্যাচে মানকাডিংয়ের সুযোগ করে দিয়েছিলেন চেন্নাইয়ের অলরাউন্ডার ডোয়াইন ব্রাভো। ইনিংসের শেষ ওভারে দেখা যায় মুস্তাফিজ হাত থেকে বল ছাড়ার আগেই অন্তত নন-স্ট্রাইকার প্রান্ত থেকে এক মিটার দূরে ছিলেন ব্রাভো! অথচ মুস্তাফিজ চাইলেই তখনই মানকাডিং করতে পারতেন ব্রাভোকে! চেন্নাইয়ের এমন কান্ডে ক্ষেপেছেন জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে।

ওই সময় মুস্তাফিজ কেন ব্রাভোকে আউট করলেন না সেই প্রশ্নই রেখেছেন তিনি। মূলত ম্যাচ চলাকালীন ধারাভাষ্যে এই ইস্যূতে ভোগলে বলেন,

“ব্রাভো কোথায় দাঁড়িয়ে আছে তা দেখুন…. এজন্য আমি বিশ্বাস করি আপনি আপনার অধিকারের (মানকাডিং) মধ্যেই রয়েছেন। টিম মিটিংয়ে ক্রিকেটারদের বলা উচিত- ব্যাটসম্যান সুযোগের এমন অপব্যবহার করলে রান আউট করা উচিত। হ্যাঁ অনেকেই স্পিরিট অব ক্রিকেট নিয়ে প্রশ্ন তুলবে তবে আমার কাছে এসব অর্থহীন মনে হয়।”

হার্শা ভোগলের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কথা বলেছেন আরেক ধারাভাষ্যকার সাইমন ডুলও। তিনি বলেন,

“ছবিতেই দেখতে পাচ্ছি ব্রাভো তার ক্রিজ থেকে কতদূরে ছিল। তাঁকে কেন রান আউট করা উচতি ছিল ছবিটিই তার জলজ্যান্ত প্রমাণ।”

উল্লেখ্য, শেষদিকে ব্রাভো ৮ বলে ২০ রানের সুবাধে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৮৮ রান তুলে চেন্নাই সুপার কিংস। জবাবে ১৪৩ রানেই থামে রাজস্থান রয়্যালস।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: