‘হেফাজত বিএনপির ভাড়াটে রাজনৈতিক খেলোয়াড়’


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, হেফাজতের রাজনৈতিক মোল্লাদের গ্রেফতারের বিরোধিতা করে বিএনপি আবারও প্রমাণ করল তারা বদলায়নি। বিএনপি সহিংসতা-নাশকতা-অন্তর্ঘাত-আগুন সন্ত্রাসের রাজনৈতিক পথেই আছে আর হেফাজত হলো তাদের ভাড়াটে রাজনৈতিক খেলোয়াড়।

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) জাসদের সাধারন সম্পাদক শিরীন আখতার সই করা এক বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো ওই বিবৃতিতে বলা হয়, দেশের মানুষের চোখের সামনে বায়তুল মোকাররম মসজিদ, হাটহাজারি মাদরাসাসহ কয়েকটি মাদরাসা থেকে এবং ফেসবুকে লাইভ ও ইউটিউব ব্যবহার করে হেফাজতি রাজনৈতিক মোল্লারা প্রকাশ্যে জ্বালাও-পোড়াও-সহিংসতা-নাশকতার উসকানি ও হুকুম দিয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম, ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে তারা প্রকাশ্যে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল, এসপির কার্যালয়, থানাসহ সরকারি অফিস-আদালত-স্থাপনা, ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান, রেলস্টেশন, আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের ঘরবাড়ি, অ্যাম্বুলেন্সসহ সরকারি-বেসরকারি যানবাহনে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করেছে।

বাংলাদেশের আইন যেহেতু সবার জন্য সমান, তাই সুনির্দিষ্ট ফৌজদারি অপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকার হাতে নাতে প্রমাণ থাকার পরও অপরাধীকে গ্রেফতার করা যাবে না কেন? কওমি মাদরাসার পরিচালক, প্রিন্সিপাল, শিক্ষক নামধারী হেফাজতি রাজনৈতিক মোল্লারা কি দেশের সংবিধান-আইন-আদালতের উর্ধ্বে? জাসদের পক্ষ থেকে এমন প্রশ্ন রাখা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, একজন কোরাআনে হাফেজ ফৌজদারি অপরাধ করলে কি তাকে গ্রেফতার করা যাবে না? তারা বলেন, হেফাজতি মোল্লারা রাজনৈতিক মোল্লা। এরা আলেম, ওলামা, ইসলামি চিন্তাবিদ, ইসলামি দার্শনিক, ইসলামি পন্ডিত, ধর্মীয় নেতা না এমনকি এরা ধর্মপ্রচারকও না। এরা রাজনীতি করে। এরা রাজনৈতিক মোল্লা।

জাসদ’র পক্ষ থেকে বলা হয়, বিএনপি ও হেফাজত আগুনসন্ত্রাস-সহিংসতা-নাশকতা-অন্তর্ঘাতের মাধ্যমে অশান্তি-অস্থিতিশীলতা-অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি সরকার উৎখাতের দিবাস্বপ্ন দেখছে। হেফাজতি মোল্লারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে যতই নাকে খত দিক, দুঃখ প্রকাশ করুক, মাফ চাক না কেন এদের ছাড় দেওয়া হবে সরকার এবং দেশের জন্য আত্মঘাতী। কারণ, রাজনৈতিক মোল্লারা রেজিস্টার্ড বেঈমান ও বিশ্বাসঘতক। এরা পাকিস্তানের দালালি আর বাংলাদেশবিরোধী রাজনীতি কোনো দিনই ছাড়বে না। বারবার প্রমাণ হয়েছে এরা সুযোগ পেলেই বাংলাদেশ রাষ্ট্র-সংবিধান-বঙ্গবন্ধু-জাতীয় পতাকা-জাতীয় সঙ্গীত-মুক্তিযুদ্ধ-স্বাধীনতার বিরোধিতা করবে ১৯৭১ সালের মতই।

জাসদ নেতৃদ্বয় বলেন, শুধু সরকার ও প্রশাসনের উপর নির্ভর করে না থেকে সকল দেশপ্রেমিক গণতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক-প্রগতিশীল-মানবতাবাদী-রাজনৈতিক-সামাজিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজনৈতিক মোল্লা এবং এদের রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষক ও পার্টনারদের বিরুদ্ধে মাঠে রাজনৈতিক শক্তি সমাবেশ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

সারাবাংলা/এএইচএইচ/একেএম





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: