করোনাকালে ১০ টাকায় ইফতার দিচ্ছে ‘উই, নট আই’


রাজনীন ফারজানা

মরণঘাতী করোনা ইতোমধ্যে সমগ্র বিশ্বকে স্তব্ধ করে দিয়েছে। ভাইরাসের ভয়াবহতা এবং তীব্র ছোঁয়াচে আচরণের কারণে সমগ্র দেশ আজ ঘরবন্দী থাকতে বাধ্য হচ্ছে। ফলে বিপদে পড়েছে শ্রমজীবী আর নিম্ন আয়ের মানুষ। গত একবছরে কর্মহীন থাকার ফলে হাতে নাই সঞ্চয়, বাধ্য হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে অনেকেই। যতদিন যাচ্ছে ততই যেন তাদের অবস্থা আরও শোচনীয় হচ্ছে।

এই দুর্যোগকালীন অবস্থা এবং চলমান রমজান মাসকে সামনে রেখে ‘উই, নট আই’ সংগঠনের সদস্যরা স্বল্প মূল্যে ইফতার সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। স্বল্পমূল্যে ইফতার কর্মসূচী ২০২১ এর আওতায় তারা মাত্র ১০ টাকায় তুলে সরবরাহ করছেন পুষ্টিকর খাবার। নিম্ন আয়ের পাশাপাশি সামর্থ্যহীন যেকোন ব্যক্তি যারা সম্মানের কথা ভেবে সাহায্য নিতে কুন্ঠাবোধ করেন, তাদের জন্যই এই আয়োজন। যেন বিনা সংকোচে নামমাত্র মূল্যে কিনে খেতে পারেন এই খাবার। মূলত এবার লক ডাউনের মধ্যে রোজা শুরু হওয়ায় তারা ইফতার বিক্রি করছেন। ঢাকার মিরপুর এক এর সালিমুদ্দিন মার্কেট ও ষাট ফিট-এর জোনাকি রোডে এই খাবার সরবরাহ করছেন তারা।

করোনাকালে ১০ টাকায় ইফতার দিচ্ছে ‘উই, নট আই’

‘উই, নট আই’ এর উদ্যোক্তা তাহসিন রিয়াজ বলছিলেন তারা পুরোটাই নিজ উদ্যোগে খরচ করছেন। ১০ টাকা মূল্য নিলেও প্যাকেটপ্রতি তাদের খরচ হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। ফলে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও কোন পানীয় দিতে পারছেন না তারা। তাছাড়া যেহেতু অনেক মানুষের জন্য আয়োজন করতে পারছেন না তারা তাই সত্যিকারের প্রয়োজন যাদের তাদের হাতে খাবার পৌঁছে দেওয়ার জন্য বিশেষ টোকেনের ব্যবস্থা করেছেন তারা। ফিল্ড সার্ভে করার মাধ্যমে এই ফুড টোকেন সরবরাহ করা হয়েছে।

গতবছর করোনাকালিন বিশেষ পরিস্থিতিতে ‘প্রোজেক্ট একান্নবর্তী’ নামে একটি বিশেষ উদ্যোগের অংশ হিসেবে কয়েক হাজার মানুষের ঘরে খাবার পৌঁছে দেয় তারা। পাশাপাশি রমজান মাসে দরিদ্র অসহায় রোজাদারদের জন্য ব্যবস্থা করা হয় স্বল্পমূল্যে ইফতার কর্মসূচি। তারই ধারাবাহিকতায় এবছর স্বল্পমূল্যে ইফতার কার্যক্রম নেওয়া হয়ছে।

 

তাহসিন বলেন, মূলত সাধারণ মানুষের সাহায্যের উপরই নির্ভর করে তারা প্রতিদিন কতজন মানুষকে এ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে পারেন। তাই সমাজের সামর্থ্যবান মানুষের প্রতি সাহায্যের আবেদন করেন তিনি। সাহায্য পাঠানোর জন্য এই লিংকে প্রবেশ করুন।

ইভেন্ট লিংক: https://www.facebook.com/183621335713826/posts/940627096679909/

সারাবাংলাকে তাহসিন বলছিলেন, ‘মানুষ মানুষের জন্য, এই কথাটি সবাই জানি। অন্যের বিপদ দেখলে আমরা এগিয়ে যাই। নিজ পরিবারের সদস্য বা সন্তান হলে তো কথাই নেই আমরা সর্বদা প্রস্তুত পাশে দাঁড়াতে। কিন্তু আমরা কি কখনো ভাবি যে আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম একটি সুস্থ পরিচ্ছন্ন দেশ পাবে কিনা? সেই ভাবনা থেকেই ‘উই,নট আই’ সংগঠনটির জন্ম। শুরু থেকেই এই দেশকে একটি পরিচ্ছন্ন ও মানবিক এক দেশ হিসেবে দেখতে চেয়েছি আমরা। তাই এমন উদ্যোগ’।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৫ জানুয়ারি জন্ম নেওয়া সংগঠনটি শুরু থেকেই আলোচনায় আসে তাদের মিরপুরব্যাপী পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চালানোর জন্য। এছাড়াও মিরপুরে মডেল সিটি বানানোর উদ্যোগ ও ব্যাপক সাড়া ফেলে। দেশের জাতীয় দিবসগুলিতে তাদের এই পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম তরুণ প্রজন্মকে ব্যাপকভাবে উদ্বুদ্ধ করে। পাশাপাশি শ্রমিক দিবস, নারী দিবসে শ্রমিক এবং বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষদের তুলে ধরতে নানা উদ্যোগ নেয় তারা। তরুণদের দক্ষ করে তুলতে লিডারশিপ ক্যাম্পের পাশাপাশি বিভিন্ন ওয়ার্কশপও আয়োজন করে সংস্থাটি।

এদিকে ধরনের আয়োজনে একধরনের বিশৃঙ্খলা দেখা দেওয়াই স্বাভাবিক। খাবার সরবরাহ শেষে রাস্তায় খাবারের প্যাকেট ও অন্যান্য ময়লা পড়ে থাকাও অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু ‘উই, নট আই’ এর তরুণ সদস্যরা নিজেদের জন্য সাতটি কর্তব্য ঠিক করে নিয়েছেন। সেগুলো হল-
১. ময়লা-আবর্জনা কিছুতেই রাস্তায় নয়, সবসময় ডাস্টবিনে ফেলা হবে।
২. টাকা ও দেওয়ালে কখনও কিছু লিখবে না কেউ
৩. বিদ্যুৎ ও পানির অপচয় থেকে বিরত থাকবে
৪. নারীদের সম্মান করতে হবে। কাউকেই অসম্মান করা যাবে না
৫. নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিজেরাই পরিচ্ছন্ন রাখবে
৬. যেকোন অবস্থাতেই রাস্তায় চলাচলরত অ্যাম্বুলেন্স ছেড়ে দেওয়া হবে
৭. ট্রাফিক নিয়মকানুন মেনে চলা হবে

সারাবাংলা/আরএফ/





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *