latest

১০ দিনে দশ হাজার মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করেছে কেন্দ্রীয় যুবলীগ


সারাবাংলা ডেস্ক

ঢাকা: পরিত্র রমজান মাসের প্রথম ১০ দিনে অন্তত দশ হাজার অসহায়-দুস্থদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করেছে কেন্দ্রীয় যুবলীগ। প্রতিদিন বিকাল ৪ টায় রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এবং শহীদ মিনার সংলগ্ন এলাকায় খাবার ও ইফতার বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়। পবিত্র রমজান মাস ও চলমান লকডাউনের প্রথমদিন থেকেই মাসব্যাপী এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।

যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ এবং সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নেতৃত্বে কেন্দ্রের উদ্যোগের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর যুবলীগও রান্না করা খাবার ও ইফতার বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। এছাড়াও যুবলীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্পটে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

যুবলীগের প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন পাভেল, উপ-ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন এসব তথ্য জানিয়েছেন।

ইতোমধ্যে সর্বমহলে যুবলীগের মাসব্যাপী এই রান্না করা খাবার ও ইফতার বিতরণ কর্মসূচি প্রশংসিত হয়েছে। এছাড়াও দেশব্যাপী করোনা প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় যুবলীগের নেতাদের সমন্বয়ে করোনা আক্রান্ত রোগী এবং যেকোনো স্বাস্থ্যসেবার তাৎক্ষণিক সমাধান পেতে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের পক্ষ থেকে শতাধিক চিকিৎসক সমন্বয়ে টেলিমেডিসিন সেবা চালু করা হয়েছে।

এছাড়া সারা দেশব্যাপী এখন ধানকাটার মৌসুম চলছে। করোনাকালীন প্রকোপের কারণে শ্রমিক সংকটের প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় নেতা-কর্মীদের গরীব কৃষকদের ধান কেটে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ এবং সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল সারা দেশব্যাপী যুবলীগের নেতা-কর্মীদের কৃষকের ধান কেটে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জেলার অসহায় কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছে যুবলীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। এছাড়া ইউনিটভিত্তিক স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বিতরণ অব্যাহত রেখেছে যুবলীগ।

উল্লেখ্য, গতবছর করোনার সংক্রমণ চলাকালে যুবলীগের মাধ্যমে সরাসরি সাড়ে ৪৫ লাখ মানুষ খাদ্য সহায়তা পেয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেওয়া রমজান ও ঈদ সামগ্রী এবং ভাইরাসের সুরক্ষা সামগ্রী পেয়েছে অন্তত এক কোটি মানুষ। দুর্যোগকালীন সময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা আসার পরপরই সারাদেশে যুবলীগকে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে মাঠে নামার আহ্বান জানান যুবলীগ চেয়ারম্যান। করোনা সংকটের মধ্যেই বন্যা বাংলাদেশের জন্য নতুন দুর্যোগ হয়ে দাঁড়ায়। কেন্দ্রের নির্দেশনার পর সারাদেশে বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ান যুবলীগের নেতাকর্মীরা। নৌকা, ট্রলারসহ বিভিন্ন মাধ্যমে বন্যার্তদের সহায়তা পৌঁছে দেন যুবলীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এছাড়া টেলিমেডিসিন সার্ভিস, অসহায় কৃষকের ধান কেটে দেওয়া, ফ্রি এম্বুলেন্স সার্ভিস, স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী দেশব্যাপী বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করে যুবলীগ।

সারাবাংলা/এসএসএ





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *