latest

মুসলিম ও এশীয়দের নিয়ে বিতর্কিত টুইট : ক্ষমা চাইলেন রবিনসন


মুসলিম ও এশীয়দের নিয়ে বিতর্কিত টুইট : ক্ষমা চাইলেন রবিনসন

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস টেস্ট শুরুর আগে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে নিজেদের অবস্থান জানায় ইংল্যান্ড জাতীয় দল। অথচ দিনের খেলা শেষ হতে সেই দলেরই অভিষিক্ত পেসারের বর্ণবাদী আচরণ নিয়ে শুরু হয় হইচই। এর প্রেক্ষিতে ক্ষমা চেয়েছেন ইংলিশ পেসার অলি রবিনসন।

মুসলিম ও এশীয়দের নিয়ে বিতর্কিত টুইট  ক্ষমা চাইলেন রবিনসন

২৭ বছর বয়সী এই পেসার লর্ডস টেস্ট দিয়ে টেস্টে অভিষেক ঘটিয়েছেন। উদ্বোধনী দিনে আলোও ছড়িয়েছেন বল হাতে। খেলা শুরুর আগে কালো টিশার্ট পরে দলের বর্ণবাদ ও লিঙ্গবৈষম্যবিরোধী অবস্থানেও অংশ নিয়েছিলেন।

Also Read – আবাহনী-ওল্ড ডিওএইচএস ম্যাচে বৃষ্টির বাগড়া

অথচ ২০১২ থেকে ২০১৪ সালে টুইটারে এশীয় নারী এবং মুসলিমদের নিয়ে বর্ণবাদী মন্তব্য করেছিলেন তিনি। রবিনসন যখন কিউই ব্যাটসম্যানদের সামলাচ্ছেন, তখন একে একে ভাইরাল হতে থাকে তার পুরনো টুইট। দিনের খেলা শেষে তাই ক্ষমা চাইতে হয়েছে তাকে।

এক আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে রবিনসন বলেন, ‘ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বিশেষ দিনটিতে আমি ৮ বছর আগের বর্ণবাদী ও সেক্সিস্ট টুইটের জন্য বিব্রত। আমি স্পষ্ট করে বলছি, আমি বর্ণবাদী বা সেক্সিস্ট নই। আমি ভীষণ অনুতপ্ত ও লজ্জিত। যে দিনটায় আমরা বৈষম্যের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছি, এমন দিনে আমার পুরনো মন্তব্য ছড়িয়ে পড়ায় যারা আহত হয়েছেন তাদের কাছে অকপটে ক্ষমা চাইছি আমি।’

মুসলিম ও এশীয়দের নিয়ে বিতর্কিত টুইট  ক্ষমা চাইলেন রবিনসন
রবিনসনের পুরনো টুইট।

রবিনসনের এমন কাণ্ডে তার কাউন্টি দল ইয়র্কশায়ার ও ইংলিশ ক্রিকেট বোর্ড ইসিবির দায়িত্বশীলতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। অনেকে অভিযোগ তুলেছেন, ইয়র্কশায়ারে অনেকদিন ধরেই চলছে বর্ণবাদী চর্চা।

পরে এক সংবাদ সম্মেলনে রবিনসন জানান, ইয়র্কশায়ারের সাথে চুক্তি বাতিল হওয়ায় মানসিকভাবে বিষণ্ণ ছিলেন তিনি, যার কারণে এমন অগ্রহণযোগ্য টুইট করে বসেছিলেন।

রবিনসন বলেন, ‘আমি দায়িত্বজ্ঞানহীন ও অবিবেচকের মত ছিলাম। তখন আমার মানসিক অবস্থা অবশ্য যেমনই থাকুক, এটা কোনো অজুহাত হতে পারে না। ঐ সময়ের পর আমি মানুষ হিসেবে পরিণত হই।’

রবিনসনের পুরনো টুইট ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে তার টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ রয়েছে।



Source link