সিডন্সকে চান না ডমিঙ্গো, দ্বিধায় সিনিয়র ক্রিকেটাররাও


সিডন্সকে চান না ডমিঙ্গো, দ্বিধায় সিনিয়র ক্রিকেটাররাও

বাংলাদেশের ক্রিকেটে রাজসিক উত্থানে বড় অবদান আছে সাবেক প্রধান কোচ জেমি সিডন্সের। তাকে ব্যাটিং কোচ করে আবারও টাইগারদের কোচিং প্যানেলে যুক্ত করতে চাইছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে তাতে অনাগ্রহ প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোসহ কয়েকজন ক্রিকেটারের।

সিডন্সকে চান না ডমিঙ্গো, দ্বিধায় সিনিয়র ক্রিকেটাররাও

দীর্ঘদিন ধরে যুতসই ব্যাটিং কোচ খুঁজে পাচ্ছে না বিসিবি। নেইল ম্যাকেঞ্জি থাকাকালেও লাল বলে কাজ করার মত কোচ ছিলেন না। ম্যাকেঞ্জি স্বেচ্ছায় চলে যাওয়ার পর ক্রেইগ ম্যাকমিলানকে এক সিরিজের দায়িত্ব দেওয়া হয়। কিন্তু সেই সিরিজও হয়নি, ম্যাকমিলানও ব্যক্তিগত কারণে আসেননি। সর্বশেষ দায়িত্ব পান জন লুইস। ইংলিশ এই কোচ ৩ দলের বিপক্ষে টাইগারদের হয়ে কাজ করেছেন। তবে তার সাথে চুক্তি বাড়াচ্ছে না বিসিবি।

Also Read – হেরাথের সাথে বনিবনা হয়নি বিসিবির

স্বভাবতই খোঁজা হচ্ছে নতুন কোচ। সেই দৌড়ে অনেকখানি এগিয়ে ছিলেন সিডন্স। বাংলাদেশের ক্রিকেটের অন্যতম আলোচিত কোচ এবার আসার কথা ব্যাটিং কোচ হয়ে। তবে গুঞ্জন- বর্তমান প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো সিডন্সকে তার নেতৃত্বাধীন কোচিং প্যানেলে চান না।

ডমিঙ্গোর অনাগ্রহের কারণও অনুমেয়। সাম্প্রতিক ব্যর্থতায় ডমিঙ্গোর পদটাই নড়বড়ে। সিডন্সের মত পরীক্ষিত কোচ প্যানেলে এলে আরও নড়বড়ে হয়ে পড়তে পারে প্রধান কোচের আসন। তাছাড়া প্রোফাইলের কথা চিন্তা করলেও ডমিঙ্গোর চেয়ে সিডন্স এগিয়ে। পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসনও প্রধান কোচ হওয়ার যোগ্যতা রাখেন। ডমিঙ্গো কঠিন সময়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়াতে আগ্রহী না হওয়াই স্বাভাবিক!

তবে সিনিয়র ও নিয়মিত ক্রিকেটারদের একটি অংশও সিডন্সকে কোচ হিসেবে চান না বলে বিডিক্রিকটাইমকে জানিয়েছে বোর্ডের ঘনিষ্ঠ সূত্র। সিডন্স কোচ থাকাকালে স্বজনপ্রীতির কিছু অভিযোগ উঠেছিল। তার অধীনে কাজ করে দলের অভাবনীয় উন্নতি হলেও কিছু বিতর্ক পিছু লেগেই থাকত। সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিমের মত ক্রিকেটাররাও নাকি দ্বিধায় আছেন সিডন্সের ব্যাপারে ‘হ্যাঁ-না’ বলতে।

সব মিলিয়ে বোর্ড পড়েছে দোদুল্যমান অবস্থায়। বিসিবি কর্তারা সিডন্সকে কোচিং প্যানেলে অন্তর্ভুক্ত করতে মরিয়া থাকলেও আপাতত দল ও টিম ম্যানেজমেন্টের বড় অংশের সমর্থনই মিলছে না।



Source link