স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দুর্নীতির ডিপো: হারুনুর রশীদ


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেছেন, প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাকসিনের সুনির্দিষ্ট গাইড লাইন নেই। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দুর্নীতির ডিপো। গতবছরে সরকার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যে অর্থ বরাদ্দ হয়েছিল সেটি জনগণের কল্যাণে সঠিকভাবে ব্যয় হয়েছে তা বলতে পারবে না। অন্যদিকে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট অবাস্তবায়িত থেকে গেছে। করোনাকালে যে বাজেট দেওয়া উচিত ছিল সেটা দিতে পারেনি এবং বাস্তবিক অর্থে সরকারের নীতি এবং ভুল সিদ্ধান্তের কারণে জনদুর্ভোগ ও ভোগান্তি বৃদ্ধি পেয়েছে।

রোববার (৬ জুন) জাতীয় সংসদে বাজেটের উপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিনের মানুষ ভ্যাকসিন কবে পাবে? দেড় বছর হলো আমরা ২ শতাংশ মানুষকেও ভ্যাকসিন দিতে পারিনি। কত দ্রুত সময়ের মধ্যে ভ্যাকসিন দিতে পারবেন? চীন, রাশিয়া কেন ট্রায়াল দিতে পারিনি? আজ ভ্যাকসিন নিয়ে আন্তর্জাতিক রাজনীতির শিকার বাংলাদেশ। যে কারণে চীন থেকে ভ্যাকসিন পাব কি না সেটাও অনিশ্চিত।’

বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেন, ‘প্রস্তাবিত ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট উপস্থান করা হয়েছে। এত বেশি বৈদেশিক ঋণ নির্ভর, এত বেশি অভ্যন্তরীণ ঋণ নির্ভর। যেটা ৫০ বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। এত ব্যাপক ঋণ নির্ভর বাজেট অতীতে কোনো সরকারের আমলে এমন বাজেট হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমি সব চাইতে বেশি উদ্বিগ্ন। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সারাদেশকে অস্থির করে তুলেছে। আমার নিজের জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী বিভাগ সবচাইতে বেশি মারাত্মকভাবে আক্রান্ত। এখন আম মৌসুম। আম চাষিরা ভয়ানকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ভারতের ভ্যারিয়েন্ট ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ল। দেশের দ্বিতীয় বৃহতম স্থল বন্দর সোনা মসজিদ বন্দর এবং যশোর বেনাপোলে প্রতিদিন হাজার হাজার গাড়ি ঢুকছে। গাড়ির সঙ্গে চালক হেলপার, তাদের সহকারী ঢুকছে, তারা যত্রতত্র ঘোরাঘুরি করছে, সেখানে যে নিরাপত্তা গ্রহণ করা দরকার সেটি করতে পারেনি বলেই বাংলাদেশের গোটা এলাকায় ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়েছে।’

বিএনপির এই এমপি বলেন, ‘মেগা প্রজেক্ট অবশ্যই দরকার আছে, কিন্তু মানুষকে আগে বাঁচাতে হবে। মানুষ বাঁচলে সবকিছু হবে।’

সামাজিক নিরাপত্তা খাতে সুরক্ষা কার্ডের মাধ্যমে সত্যিকারের দরিদ্র মানুষের কাছে টাকা দেওয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, ‘চোর বাটপারদের মাধ্যমে না। সশস্ত্র বাহিনীর মাধ্যমে বা এনজিওদের মাধ্যমে সরাসরি আইডির মাধ্যমে টাকা দেওয়ার দাবি করছি।’

সারাবাংলা/এএইচএইচ/একে





Source link