সৌম্যর টানা দ্বিতীয় অর্ধশতক, আবাহনীর সামনে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য


সৌম্যর টানা দ্বিতীয় অর্ধশতক, আবাহনীর সামনে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য

ঢাকা প্রিমিয়ার টি-টোয়েন্টি লিগে নিজেদের পঞ্চম ম্যাচে আগে ব্যাট করে মুশফিকের আবাহনীকে ১৫১ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ৬৭ রান করেন সৌম্য সরকার।

উদ্বোধনী জুটিতে ৭৮ রান তোলেন সৌম্য-মেহেদী

টস জিতে মিরপুরে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন আবাহনী লিমিটেডের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। তবে আগে ব্যাট পেয়ে মুশফিকের সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করতে চেষ্টার কমতি রাখেননি গাজী গ্রুপের দুই ওপেনার সৌম্য সরকার ও শেখ মেহেদী। দুই ব্যাটসম্যানই দলকে উড়ন্ত শুরু এনে দেন।

দু’জনেই শুরু থেকে বেশ আগ্রাসী ছিলেন। সৌম্য ও মেহেদীর আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে পাওয়ার-প্লে’তে ৫৭ রান আসে গাজী গ্রুপের। পাওয়ার-প্লে শেষ হলেও নিজেদের আগ্রাসী মনোভাবে ব্যাটিং করা থামাননি এই দুই ব্যাটসম্যান। তবে এই দুইজনের জুটি থামে দলীয় ৭৮ রানে। আমিনুলের বলে দারুণ এক ক্যাচ নিয়ে ৩১ বলে ৪৩ রান মেহেদীকে সাজঘরে ফেরান আরাফাত সানি।

Also Read – রাহাতুলের অর্ধশতকে মান বাঁচাল ব্রাদার্স, শাহাদাতের ‘২’ উইকেট

আগের দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে দলের জয়ে বড় ভূমিকা পালন করা মুমিনুল এদিন বেশি সুবিধা করতে পারেননি। ৯ বলে মাত্র ১২ রান করে শান্তর করা থ্রোতে রান আউটের শিকার হন মুমিনুল। তাঁর বিদায়ের পরই ব্যাট হাতে টানা দ্বিতীয় অর্ধশতক তুলে নেন সৌম্য। ১৪.১ ওভারে শহিদুলের করা হাফ-বলিতে ছয় মেরে ৩৬ বলে অর্ধশতক তুলে নেন সৌম্য।

সৌম্যর সঙ্গে বড় জুটি গড়তে পারেননি ইয়াসির আলী। মাত্র ২৭ রানের জুটি গড়ে ১৬ বলে ৯ রানের ইনিংস খেলে আউট হন তিনি। এই ম্যাচে রান পাননি মাহমুদউল্লাহও। পরের ওভারেই সাইফউদ্দিনের বলে বোল্ড হন মাহমুদউল্লাহ (৫)। রান পাননি জাকিরও তবুও ব্যাট হাতে একাই লড়ে গিয়েছেন সৌম্য।

শুরুতে বড় স্কোরের ইঙ্গিত দিলেও শেষদিকে আবাহনীর বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে গাজী গ্রুপকে ১৫০ রানেই আটকে দিল আবাহনী। সৌম্যর ইনিংস শেষ হয় ৬৭ রানেই। আবাহনীর হয়ে দুটি করে উইকেট নেন আমিনুল বিপ্লব ও পেসার শহিদুল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

গাজী গ্রুপ ১৫০/৮ (ওভার ২০)

সৌম্য ৬৭, মেহেদী ৪৩

আমিনুল ২/১৯ (৪),শহিদুল ৪/৪১ (৪)



Source link