যেভাবে চারাগাছ রোপন করবেন


আহসান রনি

আমরা জানি নতুন চারাগাছ রোপনের সবচেয়ে উৎকৃষ্ট সময় বর্ষাকাল। বিশেষ করে এসময় প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় ফলে মাটি নরম থাকে এবং মাটিতে প্রচুর রস থাকে। তাছাড়া নিয়মিত বৃষ্টিপাত গাছের দ্রুত বেড়ে উঠাতেও সহায়তা করে। কিন্তু কিছু অসতর্কতা বা ভুলের কারনে এ সময় অধিকাংশ ক্ষেত্রে একটি সুস্থ, সবল ও ভালো যাতের চারা রোপণ করলেও কয়েকদিনের মধ্যেই তা দুর্বল ও নিস্তেজ হয়ে ধীতে ধীরে মারা যেতে শুরু করে। তখন আমরা যে যার মতো করে ভেবে নিই হয়তো গাছ ভালো ছিল না কিংবা গাছের জাত ভালো ছিল না অথবা নার্সারি ভালো ছিল না বা গাছের বীজ কিংবা কলম ভালো ছিলনা ইত্যাদি ইত্যাদি। যদিও এ কথা ঠিক যে, গাছ ভালো না হলে অথবা গাছের বীজ কিংবা কলম করা ভালো না হলে সেই গাছ বেড়ে ওঠার সময় নানান সমস্যা হয়।

একটি ভালো ও সুস্থ চারা কিনে এনে রোপণের পর মারা যাওয়ার প্রধান কারণ কিন্তু কেবল এগুলো নয়। বরং এর প্রধান কারণ হলো শক বা অভিঘাত। নার্সারি থেকে চারা কিনে আনার পর আমরা অনেকেই প্রায়শই যে ভুলটি করি তা হলো দ্রুততার সাথে তা কোন টব অথবা মাটিতে লাগিয়ে দেই। অর্থাৎ নতুন পরিবেশে এসে চারাটিকে একটু মানিয়ে নেয়ার কোনো সুযোগ ই আমরা দেই না। আমরা ভাবি যত তাড়াতড়ি গাছটা লাগাবো গাছের জন্য তত ভালো। আমরা হয়তো ভাবি গাছটি মাটিতে দ্রুত লাগিয়ে দিলে আর মরবেনা। অথচ আমাদের এই ধারণাটি একদম ভুল একটি ধারণা । আবার অনেক ক্ষেত্রে আমরা একটি চারাগাছ রোপনের সাথে সাথেই অনেক বেশি যত্ন শুরু করে দেই, সময় অসময়ে গাছে পানি দেই, যেটা মোটেও ঠিক না। এর ফলেও নতুন চারা মারা যায়। একে তো নতুন পরিবেশের শক তার উপর আবার অত্যাধিক যত্নের শক। সব মিলিয়ে গাছটি মারা যেতে পারে।

সেক্ষেত্রে নতুন চারা কেনার পর প্রথমেই আমাদের চারাগুলো কে অনেক রোদ অথবা বৃষ্টির মধ্যে না রেখে অন্তত ২/৩ দিন ছায়াযুক্ত জায়গা অথবা পার্শিয়াল সানলাইটে রাখতে হবে। গাছটি যে পলিথিন ব্যাগ বা টবে কিনে আনা হয়েছে সেই টব অথবা পলিথিনের ব্যাগেই অন্তত সপ্তাহ খানেক রেখে আস্তে আস্তে রোদের সংস্পর্শে আনতে হবে। নতুন পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নেয়ার পর একসময় গাছটি নতুন পাতা ছাড়তে শুরু করবে। তখনই গাছটিকে পলিথিন অথবা টব থেকে বের করে মাটিতে বা টবে লাগাতে হবে। আবার নার্সারিতে গিয়ে আমরা অনেকেই সর্বপ্রথম সেই চারাগুলো পছন্দ করি যেগুলোতে ফুল অথবা ফল ধরে রয়েছে অথবা একটু বেশি লম্বা ধরনের গাছ। আর এসব গাছ বাসায় এনে রোপনের পর দেখা যায় গাছের ফুল বা ফল সব ঝরে পড়ছে । এমন চারাগাছ রোপনের পর ফুল ও ফল ঝরে পড়া কিংবা পাতা হলুদ হয়ে যাওয়ারও কিছু কারণ আছে। আমরা যখন কোনো গাছ নার্সারি থেকে কিনে ছোট কোনো পলিথিনে করে গাছটা বাসায় নিয়ে আসি এবং তারপর বড় কোনো ড্রাম বা টবে গাছটা রোপণ করি তখন ছোট চারাগাছ টি তার শেকড় ছড়ানোর দিকে নজর দেয় আর সব শক্তিই খরচ করে তার শেকড় ছড়ানোর কাজে। ফলে ফুল এবং ফল গাছ থেকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পায়না। আর এর ফলেই চারাগাছের ফুল ও ফল ঝরে পড়ে অথবা পাতা হলুদ হয়ে ঝড়ে পড়তে আরম্ভ করে।

কিছুক্ষেত্রে নার্সারিগুলোতে অনেক সময় ক্রেতাদের নজর কাড়ার জন্য ছোট ছোট চারাগাছগুলোতে হরমোন প্রয়োগ করেও ফুল ও ফল ধরানো হয়। যার ফলে বাড়িতে এনে চারাটি রোপনের পর দ্রুতই গাছ থেকে ফুল-ফল ঝরে পড়তে শুরু করে। তাই এমন পরিস্থিতিতে ফুল ফল ঝরে পড়লে চিন্তার কোনো কারণ নেই। বরং চারাগাছে ফুল ফল থাকলে রোপনের সময় এগুলো কেটে ফেলে দিতে হয়। অন্যদিকে চারা আপনি কিনে আনুন অথবা নিজে তৈরি করুন , গুটি কলম এর চারা হলে সরাসরি টবে বসিয়ে দেয়া উচিত নয়। প্রথমে ভেজা বালি ভর্তি টবে চারাটি বসিয়ে ১৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে। ১৫ দিন পর যখন দেখা যাবে ভালো শিকড় গজিয়েছে,তখন গাছটি তুলে একটা টবে লাগিয়ে ফেলা উত্তম। পাশাপাশি ছোট সাইজের সবজির চারা এনেও সরাসরি টবে লাগানো যাবেনা। বেগুন, মরিচ, টমেটোর মত ছোট ছোট চারা এনে প্রথমে সম্ভব হলে ফাঙ্গিসাইড মিশ্রিত পানিতে চুবিয়ে তারপর কোকোডাস্ট বা বালিতে বসিয়ে দিতে হবে।তারপর কিছু দিন পর যখন শেকড় বড় হবে তখন অন্য কোথাও রোপণ করতে হবে।

আমরা অনেকেই একটা সাধারণ ভুল করে থাকি, গাছ কিনে এনেই অধিক সার মিশ্রিত মাটিতে তা রোপণ করে থাকি যা মোটেও ঠিক না। চারাগাছ রোপনের প্রথম মাটিটি হবে একদম সাধারণ বেলে দোআঁশ মাটি যাতে কোন রাসায়নিক সার থাকবে না। সম্ভব হলে ৫০ শতাংশ মাটির সাথে ১০ শতাংশ গোবর সার এবং ২০ শতাংশ বালি এবং ২০ শতাংশ কোকোপিট মিশিয়ে নিলেই নতুন চারা বসানোর মাটি তৈরি হয়ে যাবে।

টবে বা ড্রামে চারা লাগাতে চাইলে টব অথবা ড্রাম এর দিকেও নজর দিতে হবে যেনো ড্রাম অথবা টবের নিচে একটা দুটো ছিদ্র করা থাকে। প্রথমে টবের বা ড্রামের ঐ ছিদ্রের উপর কিছু পাথর বা ইটের ভাঙ্গা টুকরো অংশ দিয়ে তার উপর কিছু পরিমাণ বালি দিয়ে বালির বেড তৈরি করে নিতে হবে। তারপর চারা লাগতে হবে। আর ছোট টবের ক্ষেত্রে নতুন চারা গাছ লাগানোর পর কয়েকদিন কখনোই পুরো রোদে রাখা যাবেনা। সপ্তাহ খানেক শেড এর নিচে রাখার পর রোদে রাখতে হবে। অন্তত এক মাস কোনো সার দেয়া যাবেনা। চারা রোপনোর পর যে যে কারণে গাছ মারা যায় তার মধ্যে প্রধান কারণ হলো ঘন ঘন বেশি বেশি পানি দেয়া। পানি দিলেই যে গাছ ভালো হবে এ ধারণা কিন্তু মোটেও ঠিক নয়।

সব সময় সকালে বা পড়ন্ত বিকেলে গাছে পানি দেয়া উত্তম । আবার সব গাছের পানির চাহিদাও সমান নয়। অর্থাৎ গাছের চাহিদা বুঝেই তাতে পানি দিতে হবে। সুতরাং নার্সারি থেকে চারা কিনে আনার পর এই সাধারণ কয়েকটি বিষয়ে যথাযথ সতর্কতা অবলম্বন করে তা রোপণ ও পরিচর্যা করলে গাছও ভালোভাবে বেড়ে উঠবে আর ভবিষ্যতে ফলনও সন্তোষজনক হবে।

সারাবাংলা/এসএসএস





Source link